সাংবাদিকের ‘ক্ষমতা জানা’ এজিএম স্ট্যান্ড রিলিজড

আপডেট: 08:05:17 12/07/2018



img

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : চৌগাছা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে গ্রাহকদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক ব্যবহার, নানা অনিয়মের অভিযোগে অভিযুক্ত এজিএম (কম) হুমায়ুন কবীরকে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়েছে। পল্লী বিদ্যুতের চৌগাছা জোনাল অফিসের ডিজিএম দেবকুমার মালো বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
গ্রাহকদের অভিযোগ, বর্তমানে চৌগাছা পল্লী বিদ্যুৎ অফিস দালালে ভরে গেছে। ওয়্যারিং মিস্ত্রি নামে এইসব দালালদের দৌরাত্ম্যে মানুষ অতিষ্ট। এছাড়া নানা রকমের ভুতুড়ে বিল, বিল পরিশোধের একমাস পরেও এসএমএস করে বিল প্রদানের তাগাদা দেওয়াসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। এসব বিষয়ে অফিসে গিয়ে গ্রাহকরা সমাধান করতে চাইলে তাদের সঙ্গে নানা অসৌজন্যমূলক আচরণ করতেন এজিএম (কম) হুমায়ুন কবীর। এবিষয়ে গণমাধ্যমে একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।
পরে বুধবার এজিএম (কম) হুমায়ুন কবীর অফিসে কর্মচারীদের সামনে দম্ভোক্তি করে বলেন, ‘সাংবাদিকদের ক্ষমতা আমার জানা আছে। যা পারে লিখে দিক।’ তার দম্ভোক্তির বিষয়টিও গণমাধ্যমে আসে। এর পরপরই আজ বৃহস্পতিবার হুমায়ুনকে স্ট্যান্ড রিলিজ করে ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলায় যোগদানের আদেশ দেওয়া হয়।
তবে আরেক অভিযুক্ত পৌর এলাকার ইনসপেক্টর মামুনকে বদলি না করায় গ্রাহকদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চৌগাছা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের একাধিক ব্যক্তি জানিয়েছেন, অফিসের দালালদের সঙ্গে সবচেয়ে বেশি সখ্য ইনসপেক্টর মামুনের। তার পছন্দের দালালদের ম্যানেজ না করতে পারলে কোনো গ্রাহককেই তিনি নতুন সংযোগের জন্য সুপারিশ করেন না। গণমাধ্যমে ইনসপেক্টর মামুনের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ হলে তিনি নানাজনের কাছে দৌড় ঝাপ করেন। হুমায়ুন কবীরের বদলি আদেশ আসার পর মামুন স্বস্তিতে রয়েছেন। বৃহস্পতিবার তিনি অফিসের কয়েকজনের কাছে বলেছেন, ‘এবারের মতো আমার কিছু হচ্ছে না।’
পল্লী বিদ্যুতের চৌগাছা জোনাল অফিসের ডিজিএম দেবকুমার মালো জানান, এজিএম (কম) হুমায়ুন কবীরকে ময়মনসিংহের একটি উপজেলায় বদলি করা হয়েছে। তবে ইনসপেক্টর মামুনের বিষয়ে তিনি কিছু বলতে পারেননি।

আরও পড়ুন