সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান নিখোঁজ

আপডেট: 01:01:38 06/12/2017



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকা থেকে সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান (৬১) নিখোঁজ হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন পরিবারের সদস্যরা। এ ঘটনায় ধানমন্ডি থানায় মারুফ জামানের মেয়ে সামিহা জামান একটি সাধারণ ডায়েরি (নম্বর ২১৩) করেছেন। ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
মারুফ জামান রাষ্ট্রদূত হিসেবে মারুফ জামান ৬ ডিসেম্বর ২০০৮ থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর ২০০৯ পর্যন্ত ভিয়েতনামে কর্মরত ছিলেন। এর আগে তিনি কাতারে রাষ্ট্রদূত, যুক্তরাজ্যে কাউন্সেলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৩ সালে তিনি অবসর নেন।
ধানমন্ডি থানার ওসি জানান, ‘মারুফ জামান ধানমন্ডি ৯/এ সড়কের ৮৯ নম্বর বাসায় পরিবার নিয়ে বাস করেন। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে তিনি ধানমন্ডির বাসা থেকে প্রাইভেটকারযোগে বিমানবন্দরের উদ্দেশে রওয়ানা দেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় তার মেয়ে সামিহা জামান বিদেশ থেকে বিমানবন্দরে এসে পৌঁছানোর কথা ছিল। মেয়েকে আনতেই তিনি বিমানবন্দরে যাচ্ছিলেন। কিন্তু এরপর থেকেই তার আর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি বিমানবন্দর যাননি, বাসায়ও ফিরে আসেননি। মঙ্গলবার দুপুরে তার মেয়ে সামিহা জামান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করেছেন।’
ওসি আব্দুল লতিফ জানান, ‘জিডি করার পর তারা প্রাথমিকভাবে সারাদেশের থানাগুলোয় ওয়্যারলেস মেসেজ পাঠানো হয়েছে। এরপর জানা গেছে, খিলক্ষেত থানা পুলিশ পরিত্যক্ত অবস্থায় তিন শ ফিট এলাকার রাস্তা থেকে তার প্রাইভেটকারটি উদ্ধার করেছে। আমরা তার খোঁজ জানার চেষ্টা করছি।’
খিলখেত থানার এসআই এমএ জাহেদ বলেন, ‘আজ সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে তিন শ ফিট সড়ক থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় তার গাড়িটি উদ্ধার করা হয়। এক্স-করোলা ব্র্যান্ডের গাড়ির ভেতরে রেজিস্ট্রেশনের কাগজ ছাড়া আর কিছু ছিল না।’
স্থানীয়দের বরাত দিয়ে এসআই জাহেদ জানান, গাড়িটি মঙ্গলবার সকাল থেকে ওই সড়কে পড়ে থাকতে দেখা গেছে।
জাহেদ জানান, ‘পুলিশ কন্ট্রোল রুম থেকে মেজেস পেয়ে আমি নম্বর মিলিয়ে দেখার পর গাড়িটি জব্দ করে থানায় নিয়ে আসি।’
জিডির তদন্ত কর্মকর্তা ধানমন্ডি থানার এসআই তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘মারুফ জামানের ফোনের সর্বশেষ লোকেশন ট্রেস করে উত্তরার দিকে পাওয়া গেছে। আমরা তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করছি।’
নিখোঁজ জামানের ছোট ভাই রিফাত জামান বলেন, ‘মারুফ জামানের মেয়ে সামিহা জামান বেলজিয়াম থেকে দেশ ফিরছিল। মেয়েকে রিসিভ করতেই তিনি নিজেই গাড়ি ড্রাইভ করে বিমানবন্দরে যাচ্ছিলেন। কিন্তু রাত নয়টা পর্যন্ত তিনি বিমানবন্দরে যাননি। এরপর তার জন্য অনেকক্ষণ অপেক্ষা করার পর সামিহা বাসায় চলে আসে। আমরা ভেবেছিলাম, তিনি কোনো দুর্ঘটনায় পড়েছেন কিনা। কিন্তু সারারাত কোনো খোঁজ না পেয়ে আজ দুপুরে ধানমন্ডি থানাকে জানাই। পুলিশ আমাদের জানায়, সন্ধ্যায় তার গাড়িটি অক্ষত অবস্থায় তিন শ ফিট এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এর মানে হলো, তিনি কোনো দুর্ঘটনায় পড়েননি।’
মারুফ জামামের ছোট ভাই আরো বলেন, ‘আমার ভাই কোনো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত নন। তাকে কেউ তুলে নিয়ে গেছে কিনা, আমরা বুঝতে পারছি না।’
সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন