সেই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা, অভিযান চলছে

আপডেট: 01:07:41 11/01/2017



img

বাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি : মোবাইল ফোনে তালাকের খবর পাওয়ার পর কলেজছাত্রী প্রিয়া খাতুন (১৯) আত্মহত্যার ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে বাঘারপাড়া থানায় মামলা হয়েছে। মামলাটি করেছেন প্রিয়ার বাবা ইদ্রিস আলী।
বিষয়টি নিশ্চিত করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাঘারপাড়া থানার এসআই তরুণকুমার কর সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘আত্মহত্যায় প্ররোচনা ও এতে সহায়তার অভিযোগে ৩০৬ ও ১০৯ ধারায় চারজনের নাম উল্লেখ করে মামলা হয়েছে। মামলা নম্বর ২, তারিখ ১০/০১/১৭। মামলায় আসামিরা হলেন প্রিয়ার স্বামী পুলিশের এএসআই রাকিব হাসান, রাকিবের বাবা আব্দুর রাজ্জাক, মা আনোয়ারা বেগম এবং ভাই মুকুল।
এসআই তরুণ কর জানান, মামলা হওয়ার পর আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চালানো হচ্ছে।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, মামলার প্রধান আসামি রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন টেলিকমে কর্মরত এএসআই রাকিব হাসানের ব্যাপারে বুধবার সেখানে বার্তা পাঠানো হবে।
মোবাইল ফোনে তালাকের খবর পাওয়ার পর গত রোববার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার চেচুয়াখোলা গ্রামের ইদ্রিস আলীর মেয়ে প্রিয়া খাতুন (১৯) আত্মহত্যা করেন। এদিন প্রিয়াকে পাওয়া যায় ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ওড়না ফাঁস লাগানো অবস্থায়। পরের দিন সোমবার বেলা ১২টার দিকে তার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্যে যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

আরও পড়ুন