সৈয়দ আযম মোহাম্মদের ৫টি কবিতা

আপডেট: 01:16:32 13/05/2017



img

গন্তব্য

কোথায় যাবে বলো
কোন অজানাতে
নাকি নিরূদ্দেশে
কোথায়…?

উদ্বেল প্রহর এখন
ভয়ঙ্কর রাতের আঁধার
শ্বাপদের মতো নিষ্ঠুর মানুষ
পাশবমত্তে মেতে আছে অষ্টপ্রহর।

কোন দিকে যাবে বলো
কোন নিরূদ্দেশে
জীবনের কোন্ ঠিকানায়
সব কিছুর অবশেষে…


বন্ধন

একটি কবিতায় কি সবলেখা যায়?
স্মৃতিকথা, সুখ দুঃখ কিংবা ভালোবাসা,
হৃদয়ে সঞ্চিত
ছোট ছোট আশা।

কখনও কখনও ব্যাকুল মন সাধে
অনুভুতি ভাবনায় বাসা বাধে,
সময়ের বাধুনিতে আবেগ ধরা পড়ে
পঙ্‌ক্তিমালা তখন অনিন্দ্য আবেগে ঝরে।

এখানে সব আছে, সবাই আছি
সময় হারায়, দিন হারিয়ে যায়
বয়স ফুরিয়ে যায়
অনুভূতি সেতো অফুরন্ত
শ্বাশত ভাস্বর,
কবিতা সবাইকে বেধে রাখুক
আপন সবাই থাকুক
হয় না যেন কেউ পর।


চলে যাওয়া

হয়তো আমি চলো যাবো
তোমাদের ছেড়ে
এই বিরানমাঠ
কংক্রিটে বাধানো পথ
তোমাদের দৃষ্টি
সব পিছু ফেলে
দূরে বহু দূরে।

হয়তো একদিন এ জনপদে
আবার মানুষ হাসবে
ঠিক আমারই মতো
উদাস এক দুপুর বেলায়,
তখন দৃষ্টির সীমানাতে
আমার চলে যাওয়াটুকু ভাসবে
চোখ মেললেও আর খুঁজে পাওয়া যাবে না

তবু তো থাকবে
কানে বাজবে
এক এক করে ফেলে আসা
পায়ের শব্দটুকু।

হয়তো তোমাদের স্মৃতিতে বাজবে
অনেক কথার মালা
বাতাসে থাকবে
আমার কথার রেশ
ইচ্ছে হলে সযতনে কুড়িয়ে রাখতে পারো
কিংবা ফেলেও দিতে পারো।

এইতো আছি
দৃষ্টির সীমানায়
চাইলেও তবু
দু’ চোখে মেলে না
বাতাসে শুধু কান্নার শব্দ হয়ে ভাসে
আমার  চলে যাওয়াটুকু
হয়তো আমি চলে যাবো তাই…


অদৃশ্য অনুভূতি

আমি প্রতিনিয়ত হাঁটছি
স্বদেশের মাটিতে
প্রতিনিয়ত ভালবাসছি
আমারই স্বদেশ ভূমিকে।

অদৃশ্য সে ভালবাসা
বোঝানোর কেউ নেই,
সবখানেই তো হতাশা
আর বেদনার ঢেউ।

যখন বুঝেছি
ভালবাসা দিয়ে কিছু হবেনা
আমারও প্রয়োজন ফুরিয়েছে
অজানা পথে পাড়ি দিয়েছি
সবাই ভাল থাক।

যারা দেশের জন্য রাজপথে নামছে
রাজদন্ড ছাড়ছে. ধরছে
দিনের আলোয় শত্রু সেজে
বন্ধু সাজছে রাতে
দেশের মঙ্গলতো তাদেরই হাতে।


শেকড়ের সন্ধানে

তুমি যদি খোঁজো
দেখবে
আমি ঘাস, ফুল, পাখিদের সাথে খেলা করি,
রোদের উঠনে শরীর জুড়াই
শীতের বিকেলে।

রাত্রির আবাসনে
শীতলতায় মগ্ন হই ঘুমে
ঘুম কাতুরে রাত আমায় পৌঁছে দেয়
স্মৃতির বন্দরে।

সব ফেলে আমি এখন হাঁটছি
কখনও পুড়ছি, কখনও ভিজছি
এই বৈশাখী রোদে
আমি খুঁজছি, আমি হাঁটছি
শেকড়ের সন্ধানে।