স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা

আপডেট: 06:18:30 21/03/2019



img

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি : চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার বড়বোয়ালিয়া গ্রামে স্ত্রীকে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে হত্যার পর স্বামী আত্মহত্যা করেছে বলে পুলিশ দাবি করেছে। এ নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর উদ্ধার করা লাশ পুলিশ বৃহস্পতিবার সকাল দশটার দিকে ময়নাতদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।
এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুন্সী আসাদুজ্জামান জানান, ইবাদত আলমডাঙ্গা উপজেলার বড়বোয়ালিয়া গ্রামের আদর্শপাড়ার নোয়াব জোয়ার্দারের ছেলে। আর জাহানারা কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর উপজেলার ঝুঁটিয়াডাঙ্গা গ্রামের আকছেদ আলীর মেয়ে। ২৫ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। সংসারে অভাব-অনটন নিয়ে স্বামী ইবাদত আলী (৫২) ও স্ত্রী জাহানারা খাতুনের (৫০) মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া হতো।
বুধবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে তাদের মধ্যে নিত্যদিনের মতো ঝগড়ার শব্দ শুনতে পান প্রতিবেশীরা। কিন্তু কেউ বিষয়টিকে তেমন গুরুত্ব দেননি। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে তীব্র বাদানুবাদের এক পর্যায়ে ইবাদত আলী ধারালো অস্ত্র দিয়ে স্ত্রী জাহানারাকে কোপাতে থাকে। ওই সময় জাহানারার বাম হাত কেটে দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এতে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। এরপর ইবাদত স্ত্রীর লাশ পাশে রেখে ঘরের আড়ায় গলায় দড়ি পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।
ওসি আরো জানান, গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় পাওয়া গেছে ইবাদত আলীর লাশ। ধারণা করা হচ্ছে, ইবাদত আলী তার স্ত্রীকে হত্যা করে নিজে আত্মহত্যা করেছে। তবে তদন্তসাপেক্ষে আরো বিস্তারিত বলা যাবে।
এ হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে আলমডাঙ্গা থানায় নিহতের ছেলে আশরাফুল বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। মামলা নম্বর ২৬/২০১৯।
লাশ উদ্ধার করে বৃহস্পতিবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন