স্যাটেলাইট বাণিজ্যিকভাবে কতটা সফল হবে

আপডেট: 08:13:02 11/05/2018



img

আকবর হোসেন : মহাকাশে উৎক্ষেপণের অপেক্ষায় রয়েছে বাংলাদেশের বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট।
এই স্যাটেলাইট তৈরি এবং উৎক্ষেপণের পুরো প্রক্রিয়ায় প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা খরচ করেছে বাংলাদেশ সরকার। তারা বিষয়টি ন্যাশনাল প্রাইড বা জাতীয় গৌরবের অংশ হিসেবেই দেখছে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা থেকে যখন এই স্যাটেলাইট মহাকাশের দিকে ছুটবে তখন সে মুহূর্তটি উদযাপন করার জন্য সরকারের দিক থেকে নানা আয়োজন করা হয়েছে।
এর আগে পৃথিবীর ৫৬টি দেশ মহাকাশে স্যাটেলাইট পাঠিয়েছে।
এখন প্রশ্ন হচ্ছে, এই স্যাটেলাইট থেকে বাণিজ্যিকভাবে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা কতটা? কী কাজে লাগবে এই স্যাটেলাইট?
প্রযুক্তির সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কয়েকটি ক্ষেত্রে এই স্যাটেলাইট কাজে লাগতে পারে।
•    প্রত্যন্ত এলাকায় টেলিযোগাযোগ এবং ইন্টারনেট সেবা বিস্তৃত করা,
•    যারা ভি-স্যাট ব্যবহার করে তথ্য আদান-প্রদান করছেন তাদের কাজে,
•    বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর সম্প্রচারের জন্য, এবং
•    ডিটিএইচ সেবা অর্থাৎ বর্তমানে কেবল টিভির যে সংযোগ আছে সেটির মান উন্নয়ন করা।
ইন্টারনেট ব্যবসায় জড়িত সিরাজুল হায়দার বলছেন, "সবচেয়ে বেশি সুবিধা হবে কেবল টিভির ক্ষেত্রে। ট্রিপল প্লে- অর্থাৎ ডিশ, ইন্টারনেট ও কলিং- এ তিনটি সেবা একসঙ্গে ডিটিএইচ এর মাধ্যমে পাওয়া যাবে। এতে করে প্রত্যন্ত এলাকায় এই সুবিধা ছড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হবে।"
ধারণা করা হচ্ছে, বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের একটি বড় গ্রাহক হবে।
বেসরকারি টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন বা অ্যাটকোর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং একাত্তর টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল হক বাবু বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলো অ্যাপস্টার সেভেন নামের একটি বিদেশি স্যাটেলাইট ব্যবহার করছে।
তিনি বলেন, বিদেশি স্যাটেলাইট ভাড়া বাবদ বাংলাদেশের প্রতিটি টেলিভিশন স্টেশন মাসে ২৪ হাজার ডলার খরচ করে। সেই হিসেবে বাংলাদেশের সবগুলো টেলিভিশন চ্যানেলের বিদেশি স্যাটেলাইট ভাড়া বাবদ প্রতি মাসে মোট খরচের পরিমাণ প্রায় ১৫ লাখ ডলার।
বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলো কি এ স্যাটেলাইট ভাড়া নেবে?
"আমরা অবশ্যই নেব। যেমন ধরুন, ভাড়া বাড়িতে থাকলাম। কিন্তু বাড়িটা কখনো আমার হলো না। কিন্তু বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে ভাড়া দিলে সেটি থেকে বাংলাদেশের আয় হবে," বলছিলেন মোজাম্মেল হক।
বাংলাদেশের টেলিকম খাতের একজন বিশেষজ্ঞ আবু সাইয়িদ খান বলেন, বাংলাদেশ এবং আন্তর্জাতিক বাজার লক্ষ্য করে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে বিনিয়োগ করা হয়েছে।
এই স্যাটেলাইটের জন্য যে টাকা খরচ হয়েছে, আগামী সাত বছরের মধ্যে সে খরচ উঠে আসবে বলে মনে করে বাংলাদেশ সরকার।
মি: খান মনে করেন, "যদি পেশাদারিত্বের সাথে পরিচালনা করা হয়, তাহলে এ বিনিয়োগ উঠে আসা কষ্টকর ব্যাপার নয়।"

চ্যালেঞ্জ কোথায়
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে দুটো চ্যালেঞ্জ আছে। প্রথমত, এর অবস্থান এবং দ্বিতীয়ত, এর দূরত্ব।
বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলো বর্তমানে অ্যাপস্টার নামে যে স্যাটেলাইট ব্যবহার করছে সেটি বাংলাদেশের উপরে ৯০ ডিগ্রিতে অবস্থান করছে। অ্যাপস্টার সেভেনের মাধ্যমে একদিকে দুবাই এবং অন্যদিকে মালয়েশিয়া পর্যন্ত সম্প্রচারের সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে।
মোজাম্মেল হক বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের অবস্থান হবে ইন্দোনেশিয়ার উপর ১১৯ ডিগ্রিতে এবং বাংলাদেশ থেকে ৪৫ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেলে এই স্যাটেলাইট থাকবে। ফলে এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্য পর্যন্ত সরাসরি পৌঁছনো সম্ভব হবে না। আরেকটি স্যাটেলাইটের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে পৌঁছাতে হবে।
কিন্তু তারপরেও এ বিষয়টিকে খুব বড় কোনো সমস্যা হিসেবে দেখছেন না মি. হক।
"এটা আমাদের মাথার উপরে হলে একদিকে আমরা দুবাই এবং অন্যদিকে মালয়েশিয়া পর্যন্ত চলে যেতে পারতাম।"
কিন্তু সিগন্যাল যথেষ্ট ভালো হলে এটি কোনো সমস্যা নয় বলে মি. হক মনে করেন। তিনি বলেন, টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট তিনমাস পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করতে পারবে।
সম্প্রচার মানের দিক থেকে সন্তুষ্ট হলেই তারা এই স্যাটেলাইট পাকাপাকিভাবে ব্যবহার করবেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।
স্যাটেলাইট কোন পজিশনে থাকবে সেটির জন্য আইটিইউ (ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন) থেকে বরাদ্দ নিতে হয়।
"কিন্তু আমাদের মাথার উপরের জায়গাটা নিয়ে তদানীন্তন সরকারগুলো আইটিইউকে বারবার তাগাদা দেওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশের জন্য বরাদ্দ করা জায়গা কী হবে কোনো সরকার ২০০৮-১০ এর আগ পর্যন্ত সেটি নিয়ে চিন্তাও করেনি। সেজন্য আমাদের উপরে জায়গা আমরা পাইনি," বলছিলেন মি. হক।
বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটে মোট ৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে অর্ধেক বিভিন্ন দেশের কাছে ভাড়া দেওয়ার পরিকল্পনা আছে। বাকি অর্ধেক অর্থাৎ ২০টি ট্রান্সপন্ডার ব্যবহার করবে বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানগুলো।
এর মধ্যে ১২টি ট্রান্সপন্ডার বরাদ্দ রয়েছে ডিটিএইচ (ডাইরেক্ট টু হোম) কোম্পানির জন্য। কিন্তু সে দুটি কোম্পানি যদি এ স্যাটেলাইট ভাড়া না নেয়, তাহলে এটির অর্ধেক অব্যবহৃত থেকে যাবে বলে উল্লেখ করেন মি. হক।
তিনি বলছেন, ডিটিএইচ কোম্পানিগুলোর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ভাড়া নেওয়ার সম্ভাবনা আপাতত দেখা যাচ্ছে না।

সীমাবদ্ধতা কোথায়
টেলিকম বিশেষজ্ঞ আবু সাইয়িদ খান মনে করেন, স্যাটেলাইট পরিচালনার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সীমাবদ্ধতা একটাই। সেটা হচ্ছে পরিচালনা কার্যক্রম।
তিনি মনে করেন, এখানে প্রযুক্তি কোনো বিষয় নয়। বরং প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করে ব্যবসা পরিচালনা করাটাই হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। প্রযুক্তিগত দিক থেকে কোনোই আশংকা নেই।
পরিচালনা যদি ঠিক মতো হয় তাহলে সাফল্য 'অবধারিত' বলে মনে করেন মি. খান।
উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, "বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স বোয়িং এবং এয়ারবাসের প্রযুক্তি ব্যবহার করে। সে প্রযুক্তি এমিরেটস বা সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স তারাও ব্যবহার করে। অতএব এখানে প্রযুক্তি কোনো বিষয় নয়। এখানে ব্যবসা পরিচালনার ধরনটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।"
তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্যাটেলাইট ব্যবহার করে বিদেশি কোম্পানিগুলো যদি লাভের সম্ভাবনা দেখতে পায় তাহলে তারা অবশ্যই সিটে ভাড়া নেবে।
সূত্র : বিবিসি

আরও পড়ুন