হাত ভাঙলেও দমেননি শিহাব

আপডেট: 02:33:37 10/04/2019



img

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি : মণিরামপুরে ইজিবাইক উল্টে দুই আলিম পরীক্ষার্থীসহ তিনজন আহত হয়েছেন।
বুধবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে মণিরামপুর-কালিবাড়ি সড়কের সাতনল বড় ব্রিজ-সংলগ্ন এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।
আহতরা হলেন, উপজেলার গোপালপুর গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে শিহাব, তার চাচাতো বোন বুশরা এবং শেখপাড়া খানপুর গ্রামের মশিয়ার রহমানের মেয়ে শারমিন খাতুন।
আহতদের মধ্যে শিহাব ও বুশরা মণিরামপুর ফাজিল মাদরাসা কেন্দ্রের পরীক্ষার্থী। তারা দুইজনই বাহিরঘরিয়া গোপালপুর আলিম মাদরাসা থেকে এবার আলিম পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন।
দুর্ঘটনায় শিহাবের বাম হাত ভেঙে গেছে। চিকিৎসক তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে রেফার করেছেন। কিন্তু তিনি ভাঙা হাত নিয়ে পরীক্ষা দিচ্ছেন। পরীক্ষা শেষে তাকে যশোরে হাসপাতালে নেওয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। আর বুশরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। দুর্ঘটনার কারণে প্রায় এক ঘণ্টা পর তারা পরীক্ষার হলে ঢোকেন।
এদিকে একই সময়ে একই স্থানে অন্য একটি ইজিবাইক উল্টে আহত হওয়া শারমিন মণিরামপুর হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে।
বাহিরঘরিয়া গোপালপুর আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ আব্দুল মালেক বলেন, ফিকাহ (প্রথম পত্র) পরীক্ষায় অংশ নিতে বুধবার সকালে ইজিবাইকে চড়ে মণিরামপুরে কেন্দ্রে আসছিল পরীক্ষার্থীরা। রাস্তা খারাপ হওয়ায় ইজিবাইকটি মণিরামপুর-কালিবাড়ি সড়কের সাতনল বড় ব্রিজ এলাকায় উল্টে যায়। এসময় বাইকে ৯-১০ জন যাত্রী থাকলেও আহত হয় শিহাব ও বুশরা। তাদের উদ্ধার করে মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক জানান, শিহাবের বাম হাত ভেঙে গেছে, তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করতে হবে। আর বুশরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে।
আব্দুল মালেক বলেন, ‘শিহাবের হাত ভাঙলেও সে যন্ত্রণা নিয়ে পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। পরীক্ষা শেষে তাকে সদর হাসপাতালে নেওয়া হবে।’
মণিরামপুর ফাজিল মাদরাসা কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিব মাওলানা শহিদুল্লাহ বলেন, হাত ভেঙে যাওয়ায় শিহাব বিশেষ ব্যবস্থায় পরীক্ষা দিচ্ছে। আর বুশরা ১৬ নম্বর কক্ষে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে।

আরও পড়ুন