১৫৫ রাজাকারকে এই দিনে প্রকাশ্যে হত্যা করা হয়

আপডেট: 02:17:22 09/12/2017



img

এস এম আলাউদ্দিন সোহাগ, পাইকগাছা (খুলনা) : আজ ৯ ডিসেম্বর খুলনার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুণি রাজাকারমুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে দ্বিতীয় দফার দীর্ঘ ৪৮ ঘণ্টার সম্মুখযুদ্ধের পর আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে পতন ঘটেছিল দক্ষিণ খুলনার সবচেয়ে বড় রাজাকার ঘাঁটিটির।
আত্মসমর্পণ করা ১৫৫ জন রাজাকারকে ওই দিন উপস্থিত হাজারো মানুষের রায়ে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়। যুদ্ধকালীন জনতার রায়ে এতো সংখ্যক রাজাকারদের একসঙ্গে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ঘটনা সম্ভবত আর নেই।
মুক্তিযোদ্ধাদের বর্ণনামতে, তৎকালীন পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠীর দোসররা দেশব্যাপী সাধারণ নীরিহ মানুষের ওপর অবর্ণনীয় অত্যাচার নির্যাতন চালাতে থাকে। অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকার মতো পাইকগাছায়ও প্রতিরোধ দুর্গ গড়ে ওঠে মুক্তিকামীদের সমন্বয়ে। এ সময় পাক দোসররা ব্যাপক অস্ত্র-শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ঘাঁটি করে প্রাচীন জনপদ কপিলমুণিতে। অত্যাচারের শিকার বহু পরিবার সে সময় ভারতে পাড়ি জমাতে বাধ্য হয়েছিল।
আধুনিক কপিলমুণির স্থপতি রায় সাহেব বিনোদবিহারী সাধুর সুরম্য বাড়িটি রাজাকাররা দখল সেখানে ঘাঁটি গেড়ে বসে। এরপর এলাকায় নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে যায় অনেক। প্রতিদিন বিকেল চারটা থেকে ভোর ছয়টা নাগাদ কারফিউ জারি করা হতো এলাকায়। নীরিহ মানুষদের ধরে কপোতাক্ষ নদের তীরে ফুলতলায় এনে শরীরের বিভিন্ন অংশ কেটে সেখানে লবণ দেওয়া হতো।
এসব অত্যাচার মোকাবেলা করতে পাইকগাছার রাড়ুলী, বাঁকা, বোয়ালিয়া ও গড়ইখালীতে প্রতিরোধ দুর্গ হিসেবে মুক্তিফৌজের ক্যাম্প গড়ে তোলা হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি হাই কমান্ডের তাগিদ পড়ে কপিলমুণি শত্রু ঘাঁটি আক্রমণের। খুলনাঞ্চলের মধ্যে এটি ছিল সবচেয়ে বড় ঘাঁটি। সাড়ে তিনশ’র বেশি পাক সেনা ও তাদের দোসরের অবস্থান ছিল এখানে। ঘাঁটির ছাদের ওপর সব সময় তাক করে রাখা হতো ভারি কামান ও মেশিনগান।
১৯৭১ সালের ৫ ডিসেম্বর খুলনাঞ্চলের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডাররা মিলিত হন তালার মাগুরার জনৈক শান্তির দোতলা বাড়িতে। সেখানে সিদ্ধান্ত হয় কপিলমুণি দুর্গে আঘাত হানার। ঘাঁটিটিতে অবশ্য এর আগেও একবার আক্রমণ করেছিলেন মুক্তিযোদ্ধারা। কিন্তু জনতার অসহযোগিতায় সেবারকার অপারেশন ব্যর্থ হয়। পরে পাইকগাছার রাড়ুলী ও হাতিয়ারডাঙ্গা ক্যাম্প কমান্ডাররা সমন্বিত যুদ্ধের পরিকল্পনা প্রণয়ন করেন। নৌ কমান্ডার গাজী রহমত উল্লা দাদু, স ম বাবর আলী, শেখ কামরুজ্জামান টুকু, গাজী রফিক, ইউনুস আলী ইনু, ইঞ্জিনিয়ার মুজিবর, শেখ শাহাদাৎ হোসেন বাচ্চু, মোড়ল আব্দুস সালাম, আবুল কালাম আজাদের যৌথ নেতৃত্বে অবশেষে ৭ ডিসেম্বর মধ্যরাতে চারিদিক থেকে কপিলমুণি শত্রুঘাঁটি আক্রমণ করেন মুক্তিযোদ্ধারা। কামান-মেশিনগানের বিকট শব্দে গোটা এলাকা প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। আচমকা ঘুম ভেঙে যায় মানুষের। দীর্ঘ লড়াই শেষে ৯ ডিসেম্বর বেলা ১১টার দিকে ১৫৫ জন রাজাকার সাদা পতাকা উড়িয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে। এরপর সেখান থেকে সবার চোখ ফাঁকি দিয়ে চারজন পালিয়ে যায়। এযুদ্ধে শহিদ হন দুইজন মুক্তিযোদ্ধা খুলনার বেলফুলিয়ার আনোয়ার হোসেন ও সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার গোয়ালডাঙ্গা গ্রামের আনছার আলী গাজী। আহত হন মোহাম্মদ আলী, তোরাব আলী সানাসহ অনেকে।
মুক্তিযোদ্ধারা আটক রাজাকারদের বন্দি করে নিয়ে যান ঘাঁটির সামনের কপিলমুণি সহচরী বিদ্যামন্দিরের ময়দানে। মুক্তিযোদ্ধারা ঘাঁটির অভ্যন্তরে ঢুকে সেখানে দেয়ালের গায়ে পেরেকবিদ্ধ মাছিয়াড়ার রহিম বক্স গাজীর ছেলে সৈয়দ আলী গাজীর ঝুলন্ত লাশ দেখে আঁতকে ওঠেন। এখবর মুহূর্তে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে এলাকার হাজার হাজার মানুষের ঢল নামে সেখানে। উপস্থিত জনতার দাবির প্রেক্ষিতে আটক রাজাকারদের প্রকাশ্যে গুলি করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। এসময় ১১ জনকে অধিকতর অপরাধী চিহ্নিত করে তাদের শরীরের বিভিন্ন অংশ কেটে ও রাইফেলের বেয়োনেট দিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করা হয়।