১৫ দিন হেফাজতে রেখে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ

আপডেট: 09:44:27 10/02/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরের চৌগাছায় এক স্কুলছাত্রীকে (১৪) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মো. রাসেল (২৮) নামে এক শ্রমিক গত ১৫ দিন নিজের হেফাজতে রেখে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে। ওই ছাত্রী যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। যশোর শহর, ঢাকা ও চট্টগ্রামে রেখে তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে ছাত্রীর অভিযোগ।
অভিযুক্ত ধর্ষক রাসেল বিবাহিত। তিনি ঝিকরগাছা উপজেলার গুলবাগপুর গ্রামের আবু জাফরের ছেলে এবং চৌগাছার ডিভাইন গার্মেন্টের কর্মী।
কিশোরীর মা সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘আমার মেয়ে চৌগাছা উপজেলার একটি স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। আমার বসতবাড়ির চারটি রুম। তারমধ্যে একটি রুমে রাসেল নামে ওই গার্মেন্ট কর্মী ভাড়া থাকতো। ১৫ দিন আগে আমার মেয়েকে বেড়ানোর নাম করে ফুঁসলিয়ে প্রথমে যশোর শহরের আবাসিক হোটেলে এবং পরে ঢাকা ও চট্টগ্রামে নিয়ে ধর্ষণ করে রাসেল। মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে আমি রাসেলের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করি। কিন্তু সে আমার মেয়েকে নিয়ে যায়নি বলে জানায়। খুঁজতে খুঁজতে মেয়ের সন্ধান পেয়ে আজ সকালে ঝিকরগাছা উপজেলার আটুলিয়া গ্রামে রাসেলের মামাবাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসি। আজ শনিবার দুপুরে প্রথমে চৌগাছা থানা পুলিশকে ঘটনা জানাই। পরে মেয়েকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করি।’
কথিত ধর্ষিত ওই কিশোরী সুবর্ণভূমিকে বলে, ‘রাসেল আমাদের বাসায় ভাড়া থাকতো। প্রতিদিন রাতে তার সাথে মোবাইলে কথা হতো। ১৪-১৫ দিন আগে পার্ক ও বাণিজ্য মেলায় নেওয়ার কথা বলে সে আমাকে যশোর, ঢাকা এবং চট্টগ্রামে নিয়ে যায়। এই সময়কালে সে আমাকে কয়েকবার ধর্ষণ করেছে।’
গাইনি ওয়ার্ডের মেডিকেল অফিসার কানিজ ফাতেমা সুবর্ণভূমিকে জানান, ধর্ষণের অভিযোগে এক কিশোরী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য তার শরীর থেকে আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। রিপোর্ট আসার পর বিস্তারিত জানা যাবে।
জানতে চাইলে চৌগাছা থানার ওসি খন্দকার শামীম উদ্দিন সুবর্ণভূমিকে জানান, কিশোরীকে খুঁজে পাচ্ছে না বলে তার মা ইতিপূর্বে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন। এখন পরবর্তী ঘটনা জানিয়ে লিখিত অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন