‘কারো ইচ্ছা-অনিচ্ছায় সংবিধান বদল হবে না’

আপডেট: 04:44:17 11/09/2018



img

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই সংসদ ভেঙে দেওয়া, সরকারের পদত্যাগ এবং খালেদা জিয়ার মুক্তি দিতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের দাবি প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, বিএনপি নির্বাচনে যাবে কি-না তা তাদের সিদ্ধান্তের ব্যাপার। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে যেকোনো রাজনৈতিক দলের যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার আছে।
তিনি বলেন, ‘কোনো রাজনৈতিক দল যদি মনে করেন তারা নির্বাচনে অংশ নেবেন নিতে পারেন, আবার যদি মনে করেন নির্বাচনে অংশ নেবেন না, নাও নিতে পারেন। সেটা তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার। তবে কারো ইচ্ছা-অনিচ্ছায় সংবিধানের কোনো পরিবর্তন হবে না। আমাদের সংবিধানে যে গাইডলাইন দেওয়া আছে সেই গাইড লাইন অনুযায়ী আগামী সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সংবিধানের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।’
বিএনপির সকল দাবি অযৌক্তিক, অসংবিধানিক ও আইনবহির্ভূত উল্লেখ করে হানিফ বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া একজন কয়েদি। তাকে আদালতের মাধ্যমেই মুক্তি পেতে হবে। এর বাইরে যেয়ে মুক্তি পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। সরকারের পক্ষে কোনো দÐপ্রাপ্ত কয়েদিকে আইন বহির্ভূতভাবে মুক্তি দেওয়ার কোনো বিধান নেই। বিএনপিও সেটা জানে এবং জানার পরেও বিএনপি এধরনের অযৌক্তিক দাবি করে যাচ্ছে, তার একটাই কারণ, বিএনপি নিজেরাও জানেন তাদের নেত্রী এতিমদের টাকা আত্মসাৎ করেছিল, দুর্নীতি করেছিল, নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে পারবে না বিধায় তারা আদালতকে বাদ দিয়ে এখন অযৌক্তিক রায়ে তারা যাওয়ার চিন্তা ভাবনা করছে। বিএনপি আসলে নিজে অপরাধ করেছে বলেই আদালতে যেতে ভয় পায় এবং আদালতকে ভয় পায় বলেই তারা আদালতে যেতে চায় না। আমরা বারবার বলে এসেছি বেগম খালেদা জিয়ার আদালতের বাইরে মুক্তি হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।’
নির্বাচন প্রসঙ্গে হানিফ আরো বলেন, নির্বাচন নির্ধারিত সময়ে আইন অনুযায়ী হবে, সংবিধান অনুযায়ী হবে এবং সেই নির্বাচনে বিএনপি অংশ গ্রহণ করবে। বিএনপি দশম সংসদ নির্বাচনে অংশ না নিয়ে যে ভুল করেছিল দ্বিতীয়বার সেই ভুলটা করবে না। বিএনপি যদি আবার আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করে সেটা হবে বিএনপির জন্য একটি আত্মঘাতী।
আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় কুষ্টিয়া শহরের নিজ বাসভবনে কুষ্টিয়া শহর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।
এ সময় জেলা আওয়ামী লীগ, শহর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন