‘কাস্টিং কাউচ’ ধর্ষণের কম নয়

আপডেট: 02:25:33 25/04/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : ‘কাস্টিং কাউচ’ নিয়ে হলিউড ও বলিউডে জোর আলোচনা। চলচ্চিত্র জগতে ‘কাস্টিং কাউচ’ বা অভিনয়ের প্রস্তাবের বিনিময়ে যৌন হয়রানি নতুন কিছু নয়। বলিউডের বহু অভিনেতা-অভিনেত্রী এ বিষয়ে নিজেদের অভিজ্ঞতা সবার সামনে তুলে ধরছেন।
বলিউডে কাস্টিং কাউচের সবচেয়ে বেশি শিকার হন নতুন মেয়েরা। অপ্রীতিকর অভিজ্ঞতার কথা সম্প্রতি খোলাখুলিভাবে জানাচ্ছেন অভিনয়শিল্পীরা। বলিউড তারকা ইলিয়েনা ডি’ক্রুজ, উর্বশী রৌতেলা, রাধিকা আপ্তে, কঙ্গনা রৌনত, কৃতি শ্যাননও মুখ খুলেছেন এর বিরুদ্ধে। তবে এত দিন নায়িকারা বললেও এবার ‘কাস্টিং কাউচ’ নিয়ে মুখ খুললেন কোরিওগ্রাফার সরোজ খান। তিনি ব্যাপারটিকে ‘ধর্ষণে’র শামিল বলে মনে করেন।
সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সরোজ খান বলেন, কাস্টিং কাউচের মতো ঘটনা অনেক দিন ধরে চলে আসছে। সব জায়গাতেই নারীর ওপর কারো না কারো নজর থাকে। সে সরকারি কোনো কাজের জায়গা হোক বা অন্য কোথাও। কিন্তু সবাই সব ক্ষেত্রে বলিউডকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করায়। কেনো সবাই সব সময় বলিউডকে দোষ দেয়, সে প্রশ্নও তিনি তোলেন। তবে তিনি ‘কাস্টিং কাউচ’কে ‘ধর্ষণে’র শামিল বলেও মন্তব্য করেন।
বলিউড অভিনয়শিল্পীদের ভাত জোগায়, তাই সিনেমা জগৎকে তাদের ‘বাবা-মা’ বলেও মনে করেন বলিউডের জনপ্রিয় এই কোরিওগ্রাফার সরোজ খান।
জাতীয় পুরস্কার পাওয়া সরোজ খান বলেন, যখন কাস্টিং কাউচের বিষয়টি সামনে আসে, তখন সবকিছু নির্ভর করে ওই নারীর ওপর। সে কী করতে চাইছে, তার ওপরই নির্ভর করে সবকিছু। কেউ নিজেকে বিক্রি করে দেবেন কি না, সেটা সম্পূর্ণ তার ব্যক্তিগত বিষয়ের ওপর নির্ভর করে। তাই শুধু ছবির জগৎকে সব সময় দোষ দেওয়া উচিত নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
১৯৭৪ সালে ‘গিতা মেরি নাম’ দিয়ে যাত্রা শুরু সরোজ খানের। তেজাব সিনেমায় মাধুরীর ‘এক, দুই তিন, চার পাঁচ ছয়’ এবং মিস্টার ইন্ডিয়াতে প্রয়াত শ্রীদেবীর ‘হাওয়া হাওয়া’ গানের কোরিওগ্রাফার সরোজ।
শ্রীদেবী থেকে মাধুরী দীক্ষিত, ঐশ্বর্য রাই বচ্চন থেকে শুরু করে জ্যাকলিন ফার্নান্দেজ কিংবা কারিনা কাপুর খান, বলিউডের প্রথম সারির অভিনেত্রীদের সঙ্গে কাজ করেছেন সরোজ খান। তাই, তিনি কার দিকে ইঙ্গিত করেছেন, সে বিষয়ে স্পষ্ট কোনো ইঙ্গিত দেননি।
সম্প্রতি পাকিস্তানি গায়ক অভিনেতা আলি জাফরের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ করেন গায়িকা মিশা সফি। অন্যদিকে দক্ষিণের সিনেমাও যৌন হেনস্তার অভিযোগ করেছেন অভিনেত্রী শ্রী রেড্ডি। পাশাপাশি কয়েক মাস আগে বাংলাদেশের মডেল ও অভিনয়শিল্পী ফারিয়া শাহরিনও কাস্টিং কাউচের কথা বলেছিলেন। অভিনয় আর মডেলিং করতে গিয়ে নিজের অভিজ্ঞতার কথা বলার পর ২০০৭ সালে ‘লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার’ প্রতিযোগিতার রানারআপ ফারিয়ার ওপর চটেছেন কেউ কেউ। এদের মধ্যে অভিনয়শিল্পী যেমন আছেন, তেমনি আছেন কয়েকজন প্রযোজক, পরিচালক।
সূত্র : প্রথম আলো