মণিরামপুরে স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণ, আটক ৬

আপডেট: 07:32:07 22/10/2018



img

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি : মণিরামপুরে দশম শ্রেণিপড়ুয়া ১৬ বছরের এক কিশোরী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে।
রোববার মধ্যরাতে উপজেলার হরিদাসকাটি ইউনিয়নের কুচলিয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। এতে জড়িত সন্দেহে ছয়জনকে ধরে মারপিট করে পুলিশে দিয়েছেন স্থানীয়রা।
আটক ব্যক্তিরা হলেন, হরিদাসকাটি ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের হরেণ মণ্ডলের ছেলে প্রশান্ত মণ্ডল (২৫) ও কুচলিয়া গ্রামের কালাচাঁদ সরকারের ছেলে কমলেশ সরকার (১৮), স্কুলছাত্রীর কথিত প্রেমিক সুজাতপুর গ্রামের রাজকুমারের ছেলে দেবু মণ্ডল (১৮) এবং দেবুর তিন বন্ধু অভয়নগর উপজেলার বাকারডাঙ্গা গ্রামের খোকন হালদারের ছেলে সজল হালদার (১৮), একই গ্রামের সুবল পালের ছেলে সাগর পাল (১৮) ও তাপস মণ্ডলের ছেলে আনন্দ মণ্ডল (১৮)।
এদিকে, সোমবার দুপুরে সহকারী পুলিশ সুপার রাকিবুল হাসান ও থানার ওসি সহিদুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীসহ স্থানীয়রা জানান, রোববার রাতে হরিদাসকাটি ইউনিয়নের কুচলিয়া-দিগঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫০ বছর পূর্তিতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলছিল। সেখানে অনুষ্ঠান দেখতে আসে ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী। রাত ১২টার দিকে প্রেমিক দেবু ও তার তিন বন্ধু সজল, সাগর ও তাপসের সঙ্গে স্কুলের পেছনে কথা বলছিল সে। তখন কুচলিয়া গ্রামের কার্তিক মণ্ডলের ছেলে সুদীপ মণ্ডল (১৮), লেবুগাতী গ্রামের প্রকাশ মল্লিকের ছেলে সত্যজিৎ মল্লিক (২০), প্রশান্ত ও কমলেশ মিলে দেবু ও তার বন্ধুদের মারপিট করে ওই ছাত্রীকে ধরে নিয়ে পাশের একটি খালপাড়ে ধর্ষণ করে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য প্রণবকুমার বলেন, ‘বিষয়টি জানাজানি হলে রাত তিনটার দিকে এলাকাবাসী প্রশান্ত, কমলেশ, সজল, সাগর, আনন্দ ও দেবুকে কুচলিয়া নতুনহাটে ধরে মারপিট করে। পরে ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে তাদেরকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।’
মণিরামপুর থানার ওসি সহিদুল ইসলাম বলেন, ‘চার ধর্ষকের মধ্যে প্রশান্ত ও কমলেশ আটক আছে। আর সত্যজিৎ ও সুদীপ পলাতক রয়েছে। এই ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।’
ওসি বলেন, ‘ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রী আমাদের হেফাজতে আছে। মঙ্গলবার সকালে ডাক্তারি পরীক্ষা ও জবানবন্দি রেকর্ডের জন্য তাকে যশোর নেওয়া হবে।’

আরও পড়ুন