‘যৌতুকলোভী দুশ্চরিত্র’ স্বামীর কারণে আত্মহত্যা!

আপডেট: 02:05:18 23/04/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরের মণিরামপুরে মুন্নি খাতুন নামে এক গৃহবধূ গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। স্বামীর পরকীয়া ও যৌতুকজনিত কারণে তিনি আত্মহত্যা করেন বলে স্বজনদের ধারণা।
রোববার বেলা ১২টার দিকে মণিরামপুর উপজেলার মথুররাপুরে তিনি আত্মহত্যা করলেও আজ সোমবার সকালে পুলিশ লাশ যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে আনে।
নিহত মুন্নি খাতুন মথুরাপুর গ্রামের শফিয়ার রহমানের স্ত্রী। তিনি ওই গ্রামের ইদ্রিস জোয়ার্দারের মেয়ে।
মামা আলী জিন্নাহ সুবর্ণভূমিকে জানান, প্রায় সাত বছর আগে তার ভাগ্নি মুন্নির সঙ্গে শফিয়ারের বিয়ে হয়। তাদের পাঁচ বছর বয়সী একটি মেয়েসন্তান আছে। শফিয়ার রহমান দুশ্চরিত্র ও যৌতুকলোভী। মুন্নির বিয়ের পর এই পর্যন্ত জামাইকে অনেক নগদ টাকা ছাড়াও চার লাখ টাকার মালামাল এবং দুটি গরু দেওয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, ‘শফিয়ার একই গ্রামের জনৈক আলমগীরের স্ত্রী আয়শা বেগমের সাথে দীর্ঘদিন ধরে পরকীয়া প্রেম করে আসছে। এ নিয়ে মুন্নির দাম্পত্য জীবনে কলহ চলতো। এই কারণে শফিয়ার আমার ভাগ্নিকে নিয়মিত মারপিট করতো। মনের দুঃখে গতকাল মুন্নি গোয়ালঘরের আড়ার সাথে রশি দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে মর্গে পাঠায়।’
জানতে চাইলে মণিরামপুর থানার এসআই এনামুল হোসেন সুবর্ণভূমিকে বলেন, মুন্নি খাতুন নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে আজ সকালে যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে পাওয়া গেছে, যৌতুকলোভী স্বামীর অত্যাচার ও একই গ্রামের আলমগীরের স্ত্রী আয়শা বেগমের সঙ্গে পরকীয়ার কারণে এই আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। এটা আত্মহত্যা, নাকি হত্যার প্ররোচনায় আত্মহত্যা, পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে।

আরও পড়ুন