মণিরামপুরে দুর্ঘটনায় দুই কলেজছাত্র হতাহত

আপডেট: 01:26:49 12/08/2018



img
img

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি : মণিরামপুরে পণ্যবোঝাই পিকআপ ভ্যানের সঙ্গে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে অভি (২১) নামের এক কলেজছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। এসময় মুরাদ হোসেন (১৯) নামের অপর এক ছাত্র গুরুতর আহত হন।
শনিবার রাত পৌনে আটটার দিকে যশোর-চুকনগর আঞ্চলিক মহাসড়কের মণিরামপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের গেটে দুর্ঘটনাটি ঘটে।
নিহত অভি যশোর সরকারি সিটি কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তিনি মণিরামপুরের গোবিন্দপুর গ্রামের আলম মাস্টারের ছেলে। আর আহত মুরাদ হোসেন একই এলাকার আব্দুর রহিমের ছেলে। তিনি এবার এইচএসসি পাশ করেছেন।
হতাহতদের একজন বাইক চালাচ্ছিলেন। অপরজন বাইকের পেছনে বসা ছিলেন।
নিহত অভির চাচাতোভাই রাতুল তাদের পরিচয় নিশ্চিত করেছেন।
এদিকে বাইকটিকে ধাক্কা দিয়ে পালানোর সময় স্থানীয় জনতা ধাওয়া দিয়ে চালক আব্দুল লতিফসহ পিকআপটিকে আটক করে থানা পুলিশে সোপর্দ করেন। আব্দুল লতিফ কেশবপুরের মঙ্গলকোট এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে।
পুলিশ দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে হেফাজতে নিয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহতের স্বজনরা জানান, রাত আটটার দিকে একটি পালসার মোটরসাইকেল চালিয়ে মণিরামপুর বাজার থেকে গোবিন্দপুরের বাড়িতে ফিরছিলেন অভি ও মুরাদ। তারা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের সামনে পৌঁছুলে কেশবপুর থেকে ছেড়ে আসা যশোরগামী পণ্যবাহী একটি পিকআপের সঙ্গে বাইকটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে বাইক থেকে ছিটকে পড়ে মৃত্যু হয় অভির। এসময় গুরুতর আহত হন বাইকআরোহী মুরাদ। স্থানীয়রা মুরাদকে উদ্ধার করে মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে রেফার করেন।
মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রাজিবকুমার পাল জানান, আহত মুরাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক।
মণিরামপুর থানার এসআই তাপসকুমার বলেন, ‘দুর্ঘটনার কবলে পড়া মোটরসাইকেল ও লাশ আমাদের হেফাজতে আছে। আর পিকআপ ও চালক আটক কি না জানা নাই।’
এই বিষয়ে আরো জানতে থানার ওসি মোকাররম হোসেনকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

আরও পড়ুন