মণিরামপুরে রোহিঙ্গা যুবক!

আপডেট: 07:35:49 18/09/2017



img

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি : মণিরামপুরে ৩০ বছর বয়সী এক যুবকের সন্ধান মিলেছে, যাকে রোহিঙ্গা বলে সন্দেহ করছেন স্থানীয়রা।
সোমবার দুপুরের দিকে শহরের কামালপুরে আজহারুলের দোকানে গিয়ে ওই যুবক বসেন। তখন সেখানে উপস্থিত লোকজন তার পরিচয় জানতে চান। যুবক জবাবও দেন, তবে তা কেউ বুঝতে পারেননি। চেহারা ও কথা শুনে লোকজন তাকে রোহিঙ্গা হিসেবে ধরে নেন। তারা ওই যুবককে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর বাবুল আক্তারের বাড়িতে পৌঁছে দেন। তখন থেকে সেখানেই আছেন অজ্ঞাত ওই যুবক।
কমিশনারের বাড়িতে এক ‘রোহিঙ্গা’ যুবক অবস্থান করছেন বলে খবর রটে যাওয়ায় এলাকার লোকজন বাবুল আক্তারের বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছেন। 
খবর পেয়ে বিকেলে কাউন্সিলরের বাড়িতে গিয়ে ওই যুবককে পাওয়া যায়। সুবর্ণভূমির নানা প্রশ্নের জবাব দেন তিনি। তবে তার বিন্দুবিসর্গও বোঝা যায়নি। এরপর কাগজ-কলম দিলে তিনি একটি শব্দ লেখেন; যে হরফের সঙ্গে বাঙালিরা পরিচিত নন।
এরপর ইশারা-ইঙ্গিতে জানতে চাইলে যুবক যা বোঝান, তার অর্থ দাঁড়ায়- তারা সংখ্যায় দুইজন ছিলেন। অপরজন তাকে রেখে চলে গেছেন।
এছাড়া রোহিঙ্গাদের গলা কেটে ফেলার দৃশ্য তিনি ইশারায় বোঝানোর চেষ্টা করেন। এসময় যুবককে অনেকটা অস্বাভাবিক দেখায়।
স্থানীয়রা বলছেন, লোকটাকে পাওয়ার পর তারা অনেক কথা জানার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু তার বক্তব্য কিছুই বুঝতে পারেননি।
কাউন্সিলর বাবুল আক্তার বলেন, ‘ওই যুবককে পেয়ে বাড়িতে এনে দুপুরের খাবার দিয়েছি। তাকে নতুন লুঙি কিনে দিয়েছি।’
অজ্ঞাত যুবককে নিজ হেফাজতে রাখার ইচ্ছা ব্যক্ত করেন কাউন্সিলর।
যোগাযোগ করা হলে মণিরামপুর থানার ওসি মোকাররম হোসেন বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই।’

আরও পড়ুন