মণিরামপুরে আনছার চেয়ারম্যানের 'দুর্নীতি'র তদন্ত সম্পন্ন

আপডেট: 01:31:51 19/11/2017



img

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি : ঘুষের বিনিময়ে এলজিএসপি প্রকল্পের গভীর নলকূপ দৃষ্টিনন্দন বাড়ির অভ্যন্তরে স্থাপনের অভিযোগ এনে মণিরামপুরের রোহিতা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু আনছার সরদারের বিরুদ্ধে ইউপি সদস্যদের করা অভিযোগের তদন্ত হয়েছে।
শনিবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওবায়দুর রহমান সরেজমিন এই তদন্ত করেন। এসময় তিনি অভিযোগকারী ইউপি সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। অভিযোগের সত্যতা পেয়ে ইউএনও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। যদিও ইউএনও এই ব্যাপারে সরাসরি কিছু বলতে রাজি হননি।
তদন্তকারী কর্মকর্তা ইউএনও ওবায়দুর রহমান বলেন, ‘সরেজমিন তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। বিষয়টি গোপনীয় হওয়ায় প্রতিবেদন না পাঠানো পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না।’
তদন্ত সম্পর্কে দ্রুতই প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদে পাঠানো হবে। প্রয়োজনে তদন্তের বিষয়টি জেলা প্রশাসক এবং স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশলী অধিদপ্তরের পরিচালককে লিখিত আকারে জানানো হবে বলে জানান ইউএনও।
প্রসঙ্গত, চলতি অর্থবছরের এলজিএসপি-৩ প্রকল্পের দুটি গভীর নলকূপ রোহিতা ইউনিয়নের কোদলাপাড়া গ্রামের ধনী ব্যক্তি ইমান আলী ও আকমানের দৃষ্টিনন্দন বাড়ির অভ্যন্তরে এবং একটি নলকূপ বিশ্বাসপাড়া গ্রামের ধনী ব্যক্তি ইসরাফিলের বাড়িতে স্থাপন করা হয়েছে। যেখান থেকে চেয়ারম্যান আবু আনছার সরদার ১৫ হাজার টাকা করে ঘুষ নেন বলে অভিযোগ করা হয়।
বিষয়টি নিয়ে চলতি মাসের ৫ তারিখে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তরে একটি লিখিত অভিযোগ দেন ওই ইউনিয়নের ইউপি সদস্যরা; যাতে ১২ সদস্যের মধ্যে ১১ জনের স্বাক্ষর ছিল।

আরও পড়ুন