ছেঁউড়িয়ায় লালন স্মরণোৎসব

আপডেট: 02:56:56 16/10/2018



img
img

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : ‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’- বাউলসম্রাট ফকির লালন সাঁইয়ের এই আধ্যাত্মিক বাণীর সামনে রেখে তার ১২৮তম তিরোধান দিবস উপলক্ষে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর ছেঁউড়িয়ার আখড়াবাড়ীতে আজ শুরু হয়েছে লালন স্মরণোৎসব। তিন চলবে এই উৎসব।
১২৯৭ বঙ্গাব্দের পহেলা কার্তিক উপ-মহাদেশের সবচেয়ে প্রভাবশালী আধ্যাত্মিক এই সাধকের মৃত্যুর পর কুষ্টিয়ার ছেঁউড়িয়ায় আখড়া কমিটি ও লালন একাডেমির উদ্যোগে এই অনুষ্ঠান চলে আসছে।
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রাণালয়ের সহযোগিতায় এবারো অন্যান্য বছরের মতো লালন স্মরণোৎসব হচ্ছে। সন্ধ্যায় এই উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। তবে এর আগেই একতারা-দোতারা আর ঢোল-বাঁশির সুরে ও আধ্যাত্মিক গানে প্রকম্পিত হয়ে উঠেছে লালন আখড়াবাড়ি।
আধ্যাত্মিক গুরু ফকির লালনকে স্মরণ ও তার দর্শন পাওয়াসহ অচেনাকে চেনা, জ্ঞান সঞ্চয়, আত্মার শুদ্ধি ও মুক্তির লক্ষে দেশ-বিদেশের হাজার হাজার লালন অনুসারী, ভক্ত অনুরাগী আর দর্শনার্থীরা এখন এই আখড়াবাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন।
আখড়াবাড়ী চত্বরে কালী নদীর তীরে বিশাল মাঠে জমে উঠেছে লালনমেলা। আর আখড়াবাড়ির ভেতরে ও বাইরে লালন অনুসারী, ভক্তদের খণ্ড খণ্ড সাধু আস্তানায় গুরু-শিষ্যের মধ্যে চলছে লালনের জীবনদর্শক, জীবনাচার নিয়ে আলোচনা ও তার গান।
লালন উৎসব শেষ হবে আগামী ১৮ অক্টোবর বৃহস্পতিবার রাতে। আর এই উৎসবকে নির্বিঘ্ন করতে কয়েক স্তরে কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনি তৈরি করা হয়েছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। শুধু আখড়াবাড়ী নয়, পুরো এলাকাকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে।