চাঁদাবাজি করতে গিয়ে দুই ভুয়া সাংবাদিক আটক

আপডেট: 08:51:06 15/08/2018



img

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : চাঁদাবাজি করতে গিয়ে দুই ভুয়া সাংবাদিক জনতার হাতে আটক হয়েছেন। এদের একজন পুরুষ, অন্যজন নারী। পরে তাদের হরিণাকুণ্ডু থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।
আটক ব্যক্তিরা হলেন, শৈলকুপা উপজেলার গোলকনগর গ্রামের জিয়ারত ডাক্তারের ছেলে লিটন মিয়া ও রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার নড়িয়া গ্রামের ইসলাম মোল্লার মেয়ে আনোয়ারা পারভিন হ্যাপি। বুধবার দুপুরে ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলার দুর্লভপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকরা তাদের আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেন।
হরিণাকুণ্ডু থানার ওসি আসাদুজ্জামান মুন্সি জানান, বুধবার লিটন মিয়া ও আনোয়ারা পারভিন হ্যাপি ভারতের কলকাতা ও আকাশ টেলিভিশনের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে দুর্লভপুর সরকারি প্রাইমারি স্কুলে যান। এর আগে চলতি বছরের ২৬ জুলাই এই দুইজন স্লিপ প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তুলে একই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে দেড় হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছিলেন। বুধবার তারা আবার এসেছিলেন চাঁদাবাজি করতে।  শিক্ষকদের সন্দেহ হলে তাদের আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।
দুর্লভপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এনামুল হক বলেন, ‘আমরা খোঁজ নিয়ে জানতে পারি, তারা সাংবাদিক নয়। তাই তাদের আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছি।’
আটক আনোয়ারা পারভিন হ্যাপি পুলিশকে জানিয়েছেন, তার স্বামীর বাড়ি চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গার বড় বোয়ালিয়া গ্রামে। স্বামীর সঙ্গে তার ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। এ কারণে শৈলকুপার গোলকনগর গ্রামের লিটন মিয়ার সঙ্গে ভাটই বাজারে স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে বসবাস করেন এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে গিয়ে চাঁদাবাজি করেন।
হরিণাকুণ্ডু থানায় ভুয়া সাংবাদিক লিটন ও হ্যাপির নামে দুর্লভপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এনামুল হক বাদী হয়ে মামলা করেছেন।

আরও পড়ুন