হাসপাতালে এক সপ্তাহ বিদ্যুৎ নেই, ভোগান্তি

আপডেট: 02:05:06 18/08/2018



img
img

আব্দুস সামাদ, সাতক্ষীরা : সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে গত এক সপ্তাহ ধরে বিদ্যুৎ নেই। ফলে অস্ত্রোপচার পুরোপুরি বন্ধ। অন্যান্য সেবাও চরমভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে। এতে চরম বিপাকে পড়েছেন রোগীরা। আর বিদ্যুতের অভাবের কারণে পানি সঙ্কটও সৃষ্টি হয়েছে। এতে দুর্বিষহ পরিবেশের উদ্ভব ঘটেছে।
সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডা. তওহীদুর রহমান জানান, এক সপ্তাহ আগে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের ট্রান্সফরমারটি নষ্ট হয়ে যায়। এই হাসপাতালের জন্য প্রয়োজন ১৫০ কেভির ট্রান্সফরমার। বিদ্যুৎ অফিসে বারবার বলা হলেও তারা ৫০ কেভির বেশি ট্রান্সফরমার দিতে পারছে না। খুলনা স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে ১৫০ পাওয়ার কেভি ট্রান্সফরমর চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। নতুন ট্রান্সফরমারটি পাওয়া গেলে অপারেশনসহ যাবতীয় কাজ করা যাবে বলে তিনি জানান।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শেফালি খাতুনের স্বামী মহব্বত আলি জানান, তিনদিন আগে তার স্ত্রীকে সিজার করার জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলেছিলেন, বিদ্যুৎ নেই। যদি রোগিনীকে সিজার করতে হয় তাহলে জেনারেটরে তেল কিনে দিতে হবে। নিজে তেল কিনে দেওয়ার পর তার স্ত্রীর সিজার হয়েছে বলে জানান মহব্বত।
সিদ্দিকুর রহমান নামে আরেক অ্যাটেনডেন্ট জানান, তার এক আত্মীয় সদর হাসপাতলে দশ দিন আগে ভর্তি হয়েছেন। তখন থেকেই তারা দেখছেন হাসপাতালে বিদ্যুৎ নেই।
রোগীদের অসহনীয় কষ্ট হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, জেলা শহরের প্রধান হাসপাতালের অবস্থা এমন অবস্থা মানা যায় না। বিষয়টি সমাধানে তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
সিভিল সার্জন বলছেন, বর্তমানে হাসপাতালে ২৫০-৩০০ জন রোগী ভর্তি আছেন। হাসপাতালের অপারেশন আপাতত বন্ধ আছে। দূরদুরান্ত থেকে অপারেশন করতে আসা রোগীরা ফিরে যাচ্ছে বলে তিনি জানান।
সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক মো. ইফতেখার হোসেন জানান, রোগীদের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে সাতক্ষীরা বিদ্যুৎ অফিস থেকে ৫০ কেভির একটি ট্রান্সফরমার লাগানো হয়েছে। নতুন ১৫০ কেভি ট্রান্সফরমারটি দুই-একদিনের মধ্যে হাতে পাওয়া যাবে। নতুন ট্রান্সফরমারটি হাতে পেলে আগের মতো অপারেশনসহ যাবতীয় কার্যক্রম শুরু হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।