লোহাগড়ায় প্রশ্নপত্র কপি করার সময় প্রধান শিক্ষক আটক

আপডেট: 09:36:23 10/12/2017



img

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি : প্রাথমিক স্তরের বার্ষিক পরীক্ষা আগামীকাল সোমবার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে। পরীক্ষা শুরু হওয়ার আগের দিন গত রোববার সন্ধ্যায় লোহাগড়ার নোওখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সৈয়দ জিল্লুর রহমান দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির সব বিষয়ের প্রশ্ন ফটোকপি করার সময় পুলিশের হাতে আটক হন। পরে ওই শিক্ষককে পরীক্ষার সমস্ত কার্যক্রম থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার শালনগর ইউনিয়নের নোওখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সৈয়দ জিল্লুর রহমান রোববার সন্ধ্যায় বিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির সব বিষয়ের প্রশ্নপত্র থানার সামনে মিজান স্টোরে ফটোকপি করছিলেন। এ সময় স্থানীয় জনতার সন্দেহ হলে তারা বিষয়টি পুলিশকে জানান। থানার এসআই শাহিন ফটোকপির দোকান থেকে ওই শিক্ষককে কপি করা প্রশ্নপত্রসহ আটক করেন। পরে তাকে লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে হাজির করে পুলিশ। কিন্তু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অফিসে ছিলেন না। পরে বিষয়টি প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা লুৎফর রহমানকে অবহিত করা হয়। ওই শিক্ষক সৈয়দ জিল্লুর রহমান শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে প্রশ্নপত্র ফাঁসের কথা স্বীকার করেন।
একাধিক শিক্ষক ও অভিভাবক জানান, জিল্লুর রহমানসহ অনেক শিক্ষক প্রাইভেট ও কোচিং বানিজ্যের সঙ্গে জড়িত। তারা বিভিন্ন সময় গোপনে প্রশ্নপত্র ফাঁস করে মোটা টাকা হাতিয়ে নেন।
এব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা লুৎফর রহমান বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে প্রধান শিক্ষক সৈয়দ জিল্লুর রহমানকে আসন্ন বার্ষিক পরীক্ষার সমস্ত কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তবে ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্র দিয়েই পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।’
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মু. শাহআলম বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয় তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’
উল্লেখ্য লোহাগড়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস থেকে প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর চাহিদা মোতাবেক তা বণ্টন করা হয়।

আরও পড়ুন