লোহাগড়ায় শহীদ মিনারে আ. লীগের সংঘর্ষে আহত ৭

আপডেট: 02:41:52 16/12/2017



img

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি : লোহাগড়া উপজেলায় মহান বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়াকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে।  এতে সাত নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।
এসময় সাধারণ সম্পাদক সমর্থিত কর্মী-সমর্থকরা বিজয় দিবসের অভিবাদন মঞ্চ দখল করে নেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে লোহাগড়া শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে দুই গ্রুপের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।
প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও দলীয় নেতা-কর্মী সূত্রে জানা গেছে, মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে শনিবার সকাল আটটার দিকে লক্ষ্মীপাশা মোল্যার মাঠে অবস্থিত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দেওয়াকে কেন্দ্র করে সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ ফয়জুল আমীর লিটু সমর্থিত নেতা-কর্মী-সমর্থকরা প্রতিপক্ষ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শিকাদার আবদুল হান্নান রুনু সমর্থিত নেতা-কর্মী-সমর্থকদের ধাওয়া করে। এসময় উভয় গ্রুপের কর্মী-সমর্থকরা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া এবং সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফয়জুল আমির লিটু সমর্থিত কর্মী সমর্থকরা বিজয় দিবসের অভিবাদন মঞ্চ দখল নেন। আর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শিকদার আবদুল হান্নান রুনু সমর্থিত নেতা-কর্মীরা মঞ্চ ছেড়ে দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান নেন। সংঘর্ষে কমপক্ষে সাতজন আহত হন। আহতরা হলেন, আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল হাই সরদার, উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি মোজাম খাঁন, ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শেখ ছদরউদ্দিন শামিম, জসিম, উজ্জ্বল, শুভ প্রমুখ। 
এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শিকদার আবদুল হান্নান রুনু শহীদ মিনারে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের চিহ্নিত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।
সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফয়জুল আমির লিটুর ফোনে একাধিকবার রিং করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।
লোহাগড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। সংঘাত-সংঘর্ষ এড়ানোর জন্য এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন এবং র‌্যাব ও ডিবি পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন