সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ছয়দিন পার, গ্রেফতার হয়নি কেউ

আপডেট: 07:22:51 03/02/2018



img

শৈলকুপা (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : ছয়দিন আগে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছিল মেয়েটি। কিন্তু আজো কোনো আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। অভিযোগ করা হচ্ছে, মামলা নেওয়ার সময়ও পুলিশ দুইজনের নাম বাদ দিতে বাধ্য করে। যদিও পুলিশ এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।
অভিযোগ করা হয়েছে, হরিণাকুণ্ডু উপজেলার একটি গ্রামের দশম শ্রেণিপড়ুয়া ওই কিশোরীকে গত বুধবার সন্ধ্যারাতে তার বন্ধু রাজন বাড়ির বাইরে ডেকে নিয়ে কথা বলছিল। এসময় কিশোরীকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তুলে নিয়ে যায় মিল্টন, মিন্টু ও সেলিম নামে এলাকার তিন বখাটে। তারা পাশের বিলের মধ্যে নিয়ে যায় কিশোরীকে। সেখানে রাজনের উপস্থিতিতে তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়। ধর্ষকরা এরপর কিশোরীকে তর বাড়ির পাশে ফেলে রেখে যায়। স্বজনরা গুরুতর অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।
এই ঘটনায় মেয়েটির বাবা চারজনের নাম উল্লেখ করে হরিণাকুণ্ডু থানায় একটি এজাহার দেন। কিন্তু পুলিশ মূল আসামিদের দুইজনকে মামলা থেকে বাদ দিতে ও দুইজনের নামে জবানবন্দি দিতে বাধ্য করে বলে ধর্ষিতা ও তার পরিবারের অভিযোগ করেছে ।
নির্যাতিতার মা বলেন, ‘মুখ বেঁধে নিয়ে গিয়ে দলবেঁধে ধর্ষণ করা হয়েছে আমার মেয়েকে। আমি বিচার চাই।’
ঘটনার পর কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়। তবে পরীক্ষার ফল এখনো প্রকাশ করা হয়নি বলে জানানো হয়েছে হাসপাতাল থেকে।
হরিণাকুণ্ডু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম শওকত হোসেন বলেন, ‘উদ্দেশ্যমূলকভাবে কোনো আসামিকে মামলা থেকে বাদ দেওয়া হয়নি। তদন্তে আর কারো নাম এলে তাদের মামলায় অন্তর্ভূক্ত করা হবে।’