মাগুরায় আওয়ামী লীগের সংঘর্ষ ভাংচুর লুটপাট

আপডেট: 09:10:29 22/11/2017



img

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের ঘুল্লিয়া গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে একটি দোকানে অগ্নিসংযোগসহ ছয়টি দোকান ও পাঁচটি বাড়িঘরে হামলা-ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।
বুধবার দুপুরে এ ঘটনায় আহত হয়েছেন উভয়পক্ষের অন্তত পাঁচজন।
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ১৯ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। আটক করেছে চারজনকে।
হামলা ভাংচুরের শিকার বাজারের ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী কবির শেখ, আবু বক্কার, আব্দুল কুদ্দুসসহ অন্যরা জানান, গত ২৯ জুন মহম্মদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নানের ওপর হামলা চালায় দলের বিনোদপুর ইউনিয়ন সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান ঘুল্লিয়া গ্রামের বাসিন্দা মিজানুর রহমান শিকদারের লোকজন। এ ঘটনার জের ধরে আব্দুল মান্নান শিকদারের সমর্থক ঘুল্লিয়া গ্রামের বাসিন্দা মহম্মদপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম সম্পাদক পিকুল মোল্যার সমর্থকদের সঙ্গে মিজান শিকদারের সমর্থকদের সংর্ঘষ হয়। এ সংঘর্ষে অর্ধশত বাড়ি ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এ ভাংচুর লুটপাটের অভিযোগে পিকুল মোল্লাসহ আব্দুল মান্নান সমর্থিত স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের নামে মামলা হয়। এ মামলায় দীর্ঘদিন আত্মগোপনে থাকার পর মঙ্গলবার পিকুলসহ ১১ জন মাগুরার আদালত থেকে জামিন লাভ করেন। পরদিন বুধবার উত্তেজনার এক পর্যায়ের ঘুল্লিয়া বাজারে ধারালো অস্ত্রশস্ত্র লাঠিসোটা নিয়ে দুই পক্ষ আবার সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ সময় ঘুল্লিয়া বাজারের কবির শেখের দোকানে অগ্নিসংযোগ ও কুদ্দুস, জয়নাল, ওহাব, লাবলু, শুকুরের দোকান ভাংচুর, লুটপাট এবং বাজার-সংলগ্ন আবু বক্কর সিদ্দিকীর বাড়িসহ পাঁচটি বসতঘরে হামলা ভাংচুর করে প্রতিপক্ষরা। পরে মহম্মদপুর থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। এ সময় পুলিশ ১৯ রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালায়। ঘটনাস্থল থেকে আটক করে চারজনকে। ঘুল্লিয়া বাজারের ব্যবসায়ীরা লুটপাট আতংকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালামাল নিরাপদে সরিয়ে নিচ্ছেন।
ঘটনাস্থলে উপস্থিত মহম্মদপুর থানার ইনসপেক্টর (তদন্ত) নুরুজ্জামান বলেন, 'হামলার খবর পাওয়ামাত্র মহম্মদপুর থানা পুলিশ এখানে উপস্থিত হয়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ১৯ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। আটক করা হয় চারজনকে। বর্তমানে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।'

আরও পড়ুন