নির্জন পুকুরঘাটে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষিত

আপডেট: 03:11:45 22/04/2018



img

কলারোয়া (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : কলারোয়ায় তৃতীয় শ্রেণিপড়ুয়া নয় বছরের একটি শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। শনিবার দুপুরের পর উপজেলার কেড়াগাছি ইউনিয়নের একটি গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।
ধর্ষণে অভিযুক্ত যুবকের নাম সোহাগ সরদার (২৬)। তিনি একই গ্রামের সামছুর সরদারের ছেলে। তাকে আসামি করে থানায় ধর্ষণের মামলা হয়েছে।
অপরদিকে, সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশুটিকে দেখতে সন্ধ্যায় সেখানে যান পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমান ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মেরিনা আক্তার।
খালা লিপি খাতুন জানান, শনিবার দুপুরের পর শিশুটি স্কুল থেকে ফিরে তার নানিবাড়ির পাশের একটি পুকুরে গোসল করতে যায়। সেখানে তাকে একা পেয়ে জাপটে ধরে মুখ চেপে ধর্ষণ করে সোহাগ। এ সময় শিশুটির চিৎকারে তিনিসহ পাড়ার কয়েক নারী পুকুরপাড়ে গেলে সোহাগ পালিয়ে যায়।
শিশুটিকে উদ্ধার করে দেখা যায়, তার শরীর থেকে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। প্রথমে তাকে কলারোয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে ডাক্তাররা রেফার করেন সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে।
শিশুটির মা জানান, তার মেয়ের শরীর থেকে অনেক রক্ত বেরুচ্ছে। সে উঠে দাঁড়াতে পারছে না।
সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ইকবাল মাহমুদ জানান, রক্তক্ষরণ হওয়ায় শিশুটিকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।
কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লবকুমার নাথ জানান, অভিযুক্ত ধর্ষক সোহাগকে ধরতে পুলিশি অভিযান শুরু হয়েছে। সোহাগ গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।
স্থানীয়রা জানান, শিশুটি থাকতো তার মামাবাড়ি। ধর্ষকের হাত থেকে বাঁচতে সে আপ্রাণ চেষ্টা করে। ধর্ষণের ঘটনাটি তার মামা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে জানান। তিনি থানা পুলিশে খবর দেন।
গ্রামবাসী জানান, ধর্ষণে অভিযুক্ত সোহাগের ঘরে দুই স্ত্রী ও একটি সন্তান আছে। ঘটনার পর সোহাগ পালিয়ে গেছেন।

আরও পড়ুন