উদ্ধার হলো ছাত্রী কিন্তু বাঁচতে পারলো না

আপডেট: 12:18:14 17/07/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : অপহৃত হয়েছিল স্কুলছাত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসী বন্যা (১৮)। কয়েকশ’ কিলোমিটার দূর থেকে তাকে উদ্ধার করে আনছিল পুলিশ। কিন্তু বিধি বাম। উদ্ধার পেলেও ফিরতি পথে প্রাণ গেল তার। সঙ্গে তার আরো দুই ভাই।
আজ ভোরে টাঙ্গাইল শহরে কুমুদিনী কলেজ মোড়ে একটি পুলিশবাহী মাইক্রোবাসের গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ওই তিনজন নিহত হন। আর এ ঘটনায় পুলিশ সদস্যসহ চারজন আহত হয়েছেন। আহতদের টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার ভোর সাড়ে চারটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
টাঙ্গাইল সদর থানার (ওসি) সায়েদুর রহমান এবং ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক জানান, পুলিশবাহী মাইক্রোবাস নারায়ণগঞ্জ থেকে আসামি ধরতে রাজশাহী যায়। সেখান থেকে ফেরার পথে টাঙ্গাইল শহরের নতুন বাসস্ট্যান্ড সিএনজি পাম্প থেকে গ্যাস নিয়ে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁর উদ্দেশে রওনা হয়। পথে শহরের কুমুদিনী কলেজ মোড় সড়কে স্পিডব্রেকারে প্রচণ্ড ঝাঁকুনি লাগে। এ সময় মাইক্রোবাসের গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে গাড়িতে আগুন লেগে যায়। গাড়িতে থাকা নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ চৌধুরীবাড়ী এলাকার অপহৃত স্কুলছাত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস বন্যা (১৯), তার খালাতো ভাই ফারুক (৪২) এবং চাচাতো ভাই সিরাজুল ইসলাম (৫৫) আগুনে দগ্ধ হয়ে নিহত হন।
দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে।
আর এ ঘটনায় গাড়িতে থাকা নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) তানভীর (৩৩), সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) হাবিব (৩০), কনস্টেবল আজাহার (৪৫) ও মাইক্রোবাস চালক মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া এলাকার আকতারকে (৩৫) উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মাইক্রোবাসটিতে চালকসহ মোট সাতজন ছিলেন।
সূত্র : এনটিভি