‘নৌকায় ভোট না দেওয়ায় চৌগাছায় পিটুনি’

আপডেট: 07:53:40 16/09/2017



চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : চৌগাছায় দলীয় প্রতিপক্ষ সাইফুল ইসলাম (৪৫) নামে আওয়ামী লীগের এক কর্মীকে পিটিয়ে আহত করেছে।
সাইফুল উপজেলার পাশাপোল ইউনিয়নের বাড়িয়ালী গ্রামের নুর ইসলামের ছেলে।
আহত সাইফুল ইসলামের বোন বিলকিচ বেগম বলেন, ‘আমরা গত ইউপি নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিইনি বলে আমার ভাইকে পিটিয়েছে, কুপিয়েছে। নির্বাচনের পর থেকে গ্রামে ঝামেলা লেগেই আছে। নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী অবাইদুল ইসলাম সবুজ পাশ করেন। যারা নৌকা প্রতীকের বিপক্ষে ভোট করেছিল তাদেরকে নৌকার সমর্থকরা নিয়মিত হুমকি দিচ্ছে।’
ভাতিজা মঈনুল ইসলাম জানান, শনিবার সকালে সাইফুল ইসলাম গ্রামের জামতলা মাঠে কাজ করছিলেন। এসময় অবাইদুল ইসলাম সবুজের সমর্থক বাড়িয়ালী গ্রামের মৃত আমজেদ আলীর ছেলে সাইদুল ইসলাম, রিজাউল ইসলামের ছেলে লাল্টু, মোশাররফ হোসেনের ছেলে রাজু, জহুরুল ইসলামের ছেলে ফন্টু, ইসরাইল ওরফে সোনা মিয়ার ছেলে ইয়াছিন, সফিউদ্দীনের ছেলে আলাউদ্দীনসহ ১০-১৫ জন লাঠি ও ধারালো দা দিয়ে পিটিয়ে আহত করে সাইফুলকে।
‘খবর পেয়ে আমরা ভাইকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছি,’ বলেন মঈনুল।
উল্লেখ্য, পাশাপোল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম খুন হওয়ার পরে এই ইউনিয়নে উপ-নির্বাচন হয়। নির্বাচনে অবাইদুল ইসলাম সবুজ নৌকা প্রতীক পান। আবুল কাশেমের ছেলে শাহিনুর রহমান শাহিন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এতে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়।
এব্যাপারে ইউপি সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল বলেন, ‘চাঁদা দাবির অভিযোগে গত ৩১ আগস্ট একই গ্রামের বিল্লাল হোসেন নামের একজনকে পিটিয়ে আহত করে। পরে বিল্লালের লোক সুযোগ পেয়ে সাইফুল ইসলামকে পিটিয়ে আহত করেছে।’
ইউপি চেয়ারম্যান অবাইদুল ইসলাম সবুজ বলেন, ‘বাড়িয়ালী গ্রামে নিজেদের কোন্দলে এই ঘটনাটি ঘটেছে। সাবেক চেয়ারম্যান শাহিনের লোকজনই সন্ত্রাস সৃষ্টি করছে। আমি তাদের নিয়ে কয়েকবার বসেছি বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য। কেউ কথা শুনতে চায় না । যারা এ ঘটনায় দোষী তাদের শাস্তি হওয়া উচিৎ।’

আরও পড়ুন