ভিএআর প্যানাল্টিতে কোরিয়াকে হারালো সুইডেন

আপডেট: 02:07:22 19/06/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : এক যুগ পর বিশ্বকাপে ফেরা সুইডেন প্রথম ম্যাচেই জয় পেয়েছে। প্রাণপণে লড়াই করা দক্ষিণ কোরিয়াকে পেনাল্টি থেকে পাওয়া গোলে হারিয়ে ফুটবলের সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্টে শুভ সূচনা করেছে স্ক্যান্ডিনেভিয়ার দেশটি।
নিজনি নভগোরোদে ‘এফ’ গ্রুপের ম্যাচে অধিনায়ক আন্দ্রেয়াস গ্রানক্রিস্তের একমাত্র গোলে জিতেছে সুইডেন।
বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো মুখোমুখি হয় দল দুটি। খেলায় বেশি সুযোগ তৈরি করে প্লে-অফে চারবারের চ্যাম্পিয়ন ইতালিকে বিদায় করে আসা সুইডেন। সুযোগ এসেছিল দক্ষিণ কোরিয়ার সামনেও, তবে কাজে লাগাতে পারেনি তারা। লক্ষ্যে ছিল না একটি শটও।
নিজনি নভগোরোদ স্টেডিয়ামে সোমবার ১৭তম মিনিটে প্রথম ভালো সুযোগ পায় সুইডেন। ‘ওয়ান-টু-ওয়ান’ খেলে ডি বক্সে ঢুকে পড়েন সুইডিশ অধিনায়ক গ্রানক্রিস্ত। সামনে ছিলেন কেবল গোলরক্ষক। দারুণ এক স্লাইডে কিম ইয়ং-গউন রক্ষা করেন দক্ষিণ কোরিয়াকে।  
তিন মিনিট পর আবার সুযোগ আসে সুইডেনের সামনে। অরক্ষিত মার্কাস বার্গের শট দারুণ দক্ষতায় ফিরিয়ে দেন দক্ষিণ কোরিয়ার গোলরক্ষক চো হিয়ুন-য়ু।
একের পর এক সুযোগ নষ্ট করা সুইডেন ৬৫তম মিনিটে গ্রানক্রিস্তের পেনাল্টি গোলে এগিয়ে যায়। ডি বক্সে সুইডেনের ভিক্টর ক্লাসেন পড়ে যান কিম মিন-য়ুর স্লাইডিং ট্যাকলে। শুরুতে পেনাল্টি দেননি রেফারি, পরে ভিএআর প্রযুক্তি ব্যবহার করে স্পটকিকের সিদ্ধান্ত দেন তিনি।
গোলপোস্টের নিচে দারুণ দৃঢ়তা দেখানো চু পেনাল্টি ফিরিয়ে দিতে ঝাঁপিয়ে ছিলেন ডান দিকে, তবে সুইডিশ অধিনায়ক উল্টো দিকের বার ঘেঁষে গড়ানো শটে বল পাঠান ঠিকানায়।
বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে আসার পথটা ছিল দক্ষিণ কোরিয়ার জন্য খুব কঠিন। এশিয়ার বাছাইয়ের তৃতীয় রাউন্ডে দশ ম্যাচের মধ্যে জিতেছিল মাত্র চারটিতে। বিশ্বকাপের আগেও ফিরতে পারেনি ছন্দে। সবশেষ ছয় ম্যাচে পায় মোটে একটি জয়।
সুইডেনের বিশ্বকাপে আসায় সবচেয়ে বড় অবদান তাদের শক্তিশালী ডিফেন্সের। বাছাই পর্বে ১২ ম্যাচের সাতটিতেই জাল অক্ষত রাখে তারা। দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষেও নিজেদের রক্ষণের শক্তিটা দেখাল সুইডেন। 
আগামী শনিবার নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে জার্মানির বিপক্ষে খেলবে সুইডেন। একই দিন মেক্সিকোর মুখোমুখি হবে দক্ষিণ কোরিয়া।
সূত্র : বিডিনিউজ