ট্রাক ব্যবসায়ী নিখোঁজের মামলা নেওয়ার নির্দেশ

আপডেট: 03:02:44 17/08/2018



img

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : শৈলকুপার ট্রাক ব্যবসায়ী রিয়াজুল ইসলাম লিপটনকে (২৬) পরিকল্পিতভাবে গুম করার বিষয়টি এজাহার হিসেবে রেকর্ড করার আদেশ দিয়েছেন আদালত।
ঝিনাইদহ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট প্রথম আদালতের বিচারক কাজী আশরাফুজ্জামান এই আদেশ দেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে এই আদেশ ডাকযোগে শৈলকুপা থানায় পৌঁছেছে।
চলতি বছরের শুরুতে চাঞ্চল্যকর এই নিখোঁজের ঘটনায় ঝিনাইদহ পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) নিবিড় তদন্ত করে। পিবিআইর তদন্তের পর মামলার বাদী নিখোঁজ লিপটনের বাবা আব্দুল খালেক গত ২৭ জুলাই নয়জনকে আসামি করে একটি পিটিশন মামলা (০৩/১৮) করেন। শুনানি শেষে মামলাটি এজাহার হিসেবে গ্রহণ করে সাত কার্যদিবসের মধ্যে শৈলকুপা থানার ওসিকে বিষয়টি আদালতকে অবহিত করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়।
মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে শৈলকুপা বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা শারমিন আক্তার তানিয়াকে। এ ছাড়া কীর্তিনগর গ্রামের মোবারক মল্লিকের ছেলে শিহাবুল আলম মল্লিক, মাঠপাড়ার মোজাহার মণ্ডলের ছেলে শহিদুল ইসলাম, পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার কৈকন্ডা গ্রামের আমেজ প্রামানিকের ছেলে নজরুল ইসলাম, চরপাড়ার আফিল উদ্দীনের ছেলে জমির উদ্দীন, ধুলিয়াপাড়া গ্রামের আকুলের ছেলে পলাশ, কেষ্টপুর গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে রিপন, কোর্টপাড়ার ফিরোজ খানের ছেলে সুমন খান ও জামশেদপুর গ্রামের এলাহী মণ্ডলের ছেলে ফজলুর রহমান। এছাড়া অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে; যারা সন্দেহের তালিকায় রয়েছে ।
এর আগে ঝিনাইদহ পিবিআইর এসআই গাবুর আলী সরদার একাধিক সাক্ষীর সাক্ষ্য শেষে আদালতে দাখিল করা প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন, আসামি শারমিন আক্তার তানিয়ার সঙ্গে নিখোঁজ লিপটনের পরকীয়া ছিল। সেই সূত্র ধরে লিপটন তানিয়ার বাড়িতে যাতায়াত করতো। নিখোঁজ হওয়ার দিন ও পরে তানিয়া তার ইটভাটার সরদার নজরুল ইসলামসহ একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে মোবাইলে কথা বলেন। বিষয়টি রহস্যজনক, কারণ ইটভাটার সরদার নজরুলের কাছে কোনো দিন তানিয়া কথা বলেননি। ঘটনার দিন চলতি বছরের ৪ জানুয়ারি রাত দশটার দিকে তানিয়া ফোন করে সরদারকে বলেন, কোনো লোক যাতে বাইরে না যায় সে দিকে খেয়াল রাখতে। পর দিন লোকমুখে ভাটা সরদার জানতে পারেন, লিপটন নিখোঁজ হয়েছে। জিআর মামলা রুজু করে তানিয়াসহ অন্যান্যদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে লিপটন নিখোঁজ হওয়ার রহস্য উদ্ঘাটনের অভিমত দেয় পিবিআই।
নিখোঁজ লিপটনের বাবা বাদী আব্দুল খালেক অভিযোগ করেন, লিপটনের নিজের নামে দুটি ট্রাক (ঢাকা মেট্রা-ট-১৮-৮৪৫৭ ও ঝিনাইদহ-ট-১১-১২৯৪) আত্মসাৎ ও স্বার্থ সংশ্লিষ্ট নানা কারণে তানিয়াসহ কয়েকজন তাকে ইটভাটার আগুনে পুড়িয়ে খুন-গুম করেছে। মামলাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে আসামিরা নানা অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও তার অভিযোগ। লিপটন নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে তার দুটি ট্রাকের ভাড়া আদায় করছেন তানিয়া।

আরও পড়ুন