সাগরে নিম্নচাপ, ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস

আপডেট: 10:47:05 20/09/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সুস্পষ্ট লঘুচাপটি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এটি আজ বৃহস্পতিবার রাতেই ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। নিম্নচাপের প্রভাবে দেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যাচ্ছে। অনেক এলাকায় বৃষ্টিও চলছে। ঘূর্ণিঝড়টির এখন পর্যন্ত যা গতিমুখ, তাতে এটি আজ রাত সাড়ে দশটার মধ্যে ভারতের উত্তর অন্ধ্র ও দক্ষিণ ওডিশা উপকূল অতিক্রম করতে পারে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে এ কথা বলা হয়েছে।
ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে আজ রাত থেকে দেশের বেশির ভাগ এলাকায় মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। সেই সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত নৌযানগুলোকে নিরাপদ স্থানে অবস্থান করতে বলা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নৌযানগুলোকে সাগরে না যাওয়ার জন্য বলা হয়েছে। চট্টগ্রাম, মোংলা, পায়রাবন্দর ও কক্সবাজারকে তিন নম্বর সতর্কসংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।
এ বিষয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আবদুল মান্নান বলেন, গভীর নিম্নচাপটি আজ রাত দশটার মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। সাড়ে দশটা থেকে ১১টার মধ্যে এটি ভারতের অন্ধ্র ও ওডিশা উপকূলে আঘাত হানতে পারে। এর প্রভাবে বাংলাদেশে আগামী দুই-তিন দিন মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে।
গভীর নিম্নচাপ কেন্দ্রে বাতাসের গতিবেগ ৪৮ থেকে ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত রয়েছে, যা ঝোড়ো হাওয়ার বেগে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্রে সাগর উত্তাল রয়েছে। তবে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম ও দক্ষিণাঞ্চলে যখন ঝড়-বৃষ্টির দাপট চলছে, তখন দেশের মধ্য ও উত্তরাঞ্চলে মৃদু দাবদাহ অব্যাহত আছে। আজও ভোলায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
এদিকে নিম্নচাপের প্রভাবে ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। আজ রাত থেকে ভোর পর্যন্ত রাজধানীতে ২৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। দেশের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে নেত্রকোনায় ৩৪ মিলিমিটার। এ ছাড়া দেশের অন্যান্য স্থানেও কমবেশি বৃষ্টি হয়েছে।
আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, গভীর নিম্নচাপটি আজ বেলা তিনটা পর্যন্ত চট্টগ্রাম থেকে ৭৬৫ কিলোমিটার, মোংলা থেকে ৬২০ ও পায়রা থেকে ৬৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছিল। এর প্রভাবে বাতাসে বায়ুর চাপের তারতম্য দেখা দিয়েছে। বইছে ঝোড়ো হাওয়া।
সূত্র : প্রথম আলো