খুলনা ওয়াসায় নিম্নমানের পাইপ সরবরাহের অভিযোগ

আপডেট: 02:14:14 23/11/2017



img
img
img

জিয়াউস সাদাত, খুলনা : খুলনা ওয়াসায় ২০টি উৎপাদক নলকূপ স্থাপনের জন্য সোয়া পাঁচ কোটি টাকার নিম্নমানের পাইপ ও ফিল্টার কেনার অভিযোগ উঠেছে। নির্দিষ্ট মানের মালামাল না দেওয়ায় ওয়াসার বাতিল করা টেন্ডার সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিটের (সিপিটিইউ) আদেশে সরবরাহ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রকল্প পরিচালকের বিরুদ্ধে। আপিল করে পুনঃটেন্ডারের সুযোগ থাকলেও রহস্যজনক কারণে তা করা হয়নি।
খুলনা ওয়াসার সূত্র জানায়, নগরবাসীর পানির চাহিদা মেটাতে ওয়াসা অন্তর্বর্তীকালীন এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে উৎপাদক নলকূপ বসানোর কাজ চলছে। ইতোমধ্যে তিনটির কাজ শেষ হয়েছে। এ সব নলকূপের জন্য পাঁচ কোটি ১১ লাখ টাকার মালামাল কেনা হয়েছে। সরবরাহ করেছে যশোরের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কারিমা কনসাইনমেন্ট। তারা ছয় ইঞ্চি জিআই পাইপ চার হাজার ২০০ মিটার, ১৬ ইঞ্চি হাউজিং (এমএস) পাইপ এক হাজার ২২০ মিটার এবং ইঞ্চি এসএস ফিল্টার ৬০০ মিটার সরবরাহ করে। প্রতিষ্ঠানটি জিআই পাইপ প্রতি মিটার পাঁচ হাজার ৯০০ টাকা হিসেবে দুই কোটি ৪৭ লাখ, হাউজিং পাইপ প্রতি ইঞ্চি ১২ হাজার ৭২৫ টাকা হিসেবে এক কোটি ৫৫ লাখ এবং ও ফিল্টার প্রতি মিটার সাড়ে ১১ হাজার টাকা হিসেবে ৬৯ লাখ টাকা বিল গ্রহণ করেছে।
একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, টেন্ডারে কারিমা কনসাইনমেন্ট সর্বনিম্ন দরদাতা হলেও তারা যে নমুনা সরবরাহ করে তা টেন্ডারের নির্দিষ্ট গুণগত মানের না হওয়ায় ওয়াসা কর্তৃপক্ষ বাতিল করে পুনঃটেন্ডারের উদ্যোগ নেয়। এ সময় কারিমা কনসাইনমেন্ট সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিট-সিপিটিইউয়ের কাছে টেন্ডার বহাল রাখার আবেদন করে। সেখানে তারা ‘নির্দিষ্ট গুণগত মানের মাল সরবরাহ করবে’ মর্মে মুচলেকা দেয়। এ প্রেক্ষিতে সিপিটিইউ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে ‘কার্যাদেশ দেওয়া যায়’ মর্মে ওয়াসাকে আদেশ দেয়। তবে এ বিষয়ে আপিল করার সুযোগ আছে বলে ওয়াসাকে জানায় সিপিটিইউ। কিন্তু আপিল না করে সরাসরি কার্যাদেশ দিয়ে দেয় ওয়াসা কর্তৃপক্ষ।
কার্যাদেশ পাওয়ার পর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যে হাউজিং পাইপ সরবরাহ করেছে তা এপিআই (মার্কিন মানের) স্ট্যান্ডার্ট হওয়ার কথা। কিন্তু উৎপাদনকারী ভারতীয় উৎকর্ষ কোম্পানি ওই মানের পাইপ তৈরিই করে না। সরবরাহ করা ফিল্টার পাইপ এসএস বলা হলেও মুখের দিকে মরিচা ধরেছে। যা সুতি কাপড় দিয়ে ঘষে উঠিয়ে ফেলা হচ্ছে এবং ওই পাইপের বডিতে উৎপাদনকারী ভারতীয় জনশন কোম্পানি খোদাই করা কোনো লোগো দেখা যায়নি। শুধুমাত্র প্রিন্ট করা একটি কাগজ পাইপের মুখে সাঁটা রয়েছে।
তবে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সরবরাহ করা পাইপের নমুনায় সমস্যা ছিল বলেই টেন্ডার বাতিল করা হয় বলে দাবি করেন ওয়াসার ডিএমডি প্রকৌশলী কামাল উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘আপিল করার যে সুযোগ ছিল তা কেন গ্রহণ করা হয়নি তা বলতে পারবো না।’
এই প্রকল্পের পরিচালক খুলনা ওয়াসার নির্বাহী প্রকৌশলী রেজাউল ইসলাম জানান, নমুনা পর্যায়ে মালের গুণগত মানে কিছু ঘাটতি ছিল। কিন্তু সরবরাহ করা মালামালে তা নেই। বুয়েটের টেস্ট করা মানসম্মত মালই আমরা সরবরাহ নিয়েছি। কোনো ধরনের অনিয়ম হয়নি।
ফিল্টারে মরিচা পড়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘আমি শুনিনি। এখন জানলাম; বিষয়টি আমি দেখছি।’

আরও পড়ুন