ইমরান যৌনতার বিনিময়ে পদ দিতেন : রেহাম

আপডেট: 02:46:53 08/06/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : বড় পদ দেওয়ার জন্য নারী কর্মীদের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করতেন পাকিস্তানের তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) চেয়ারম্যান ও সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খান। আর এমন অভিযোগ করেছেন ইমরান খানের সাবেক স্ত্রী রেহাম খান। আত্মজীবনীতে তিনি লিখেছেন, দলের নারী কর্মীদের বড় পদ দেওয়ার জন্য ইমরান তাদের থেকে যৌনসুবিধা আদায় করেন।
পাকিস্তানে ২৫ জুলাই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এর আগে একরকম বোমা ফাটালেন ইমরান খানের সাবেক স্ত্রী রেহাম খান। বইটি রেহাম ও খানের বিবাহিত জীবনকে ঘিরে লেখা।
সিএনএন ১৮-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রেহাম অভিযোগ করেন, ইমরান খান প্রতিষ্ঠিত পিটিআই দলের নারী কর্মীরা তখনই বড় পদ পান, যখন তারা ইমরানের সঙ্গে বিছানায় যেতে রাজি থাকেন। কেউ বড় পদ চাইলে ইমরান সরাসরি তাকে জানিয়ে দেন যে তার সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করতে হবে। প্রকাশিতব্য বইয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত লিখেছেন রেহাম।
১৯৯৫ সালে ইমরান প্রথম বিয়ে করেছিলেন জেমিমা গোল্ডস্মিথকে। ২০০৪ সালে সেই বিয়ে ভেঙে যাওয়ার পর ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে ইমরান আবার বিয়ে করেন পাকিস্তানি-ব্রিটিশ সাংবাদিক রেহাম খানকে। ওই বছরই অক্টোবরে ভেঙে যায় দ্বিতীয় বিয়েটাও।
রেহাম বলেছেন, ইমরান খান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হলে দেশটির পক্ষে তা অত্যন্ত বাজে ব্যাপার হবে। তার বইয়ের কিছু অংশ এক হ্যাকার অনলাইনে ফাঁস করে দিয়েছেন। সাধারণ নির্বাচনের আগে এসব তথ্য ভোটারদের মধ্যে পৌঁছে গেলে ইমরানের পক্ষে তা অত্যন্ত খারাপ হবে।

আকরামের আইনি নোটিস
অনেকেই অবশ্য বইটি প্রকাশের আগেই নিষিদ্ধ করার দাবি তুলেছেন। আপত্তিকর তথ্য প্রকাশ করায় রেহামকে আইনি নোটিস পাঠিয়েছেন পাকিস্তানের এক সময়ের সেরা ফাস্ট বোলার ওয়াসিম আকরাম। আকরামের অভিযোগ, বইতে রেহাম নিজস্ব যাবতীয় ব্যক্তিগত কথা লিখে দিয়েছেন, এতে তার সম্মানহানি হয়েছে।
এ ছাড়া রেহামকে আইনি নোটিস পাঠিয়েছেন তার সাবেক স্বামী এজাজ রহমান, ব্রিটিশ ব্যবসায়ী সৈয়দ জুলফিকার বুখারি ও তেহরিক ই ইনসাফ দলের মিডিয়া কো-অর্ডিনেটর অনিলা খাজা।

অর্থ নিয়েছেন রেহাম!
পিটিআইয়ের অনেক নেতা মনে করছেন, বিরোধী দলের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে ইমরানকে ছোট করতে তার সাবেক স্ত্রী বইটি অনলাইনে ফাঁস করেছেন। কয়েকজন টুইটারে লিখেছেন, আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করেই ইমরান খানের চরিত্র কলুষিত ও মানসম্মানকে ভূলুণ্ঠিত করার এজেন্ডা এটা।
পাকিস্তানের একজন বিখ্যাত সংগীতজ্ঞ ও পিটিআইয়ের সদস্য সালমান আহমেদ বলেন, সাবেক স্বামীর ক্ষতি করতে রেহাম পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) কাছ থেকে অর্থ নিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র আমাকে জানিয়েছে, এ বইটি লিখতে রেহামকে পিএমএল-এন ১৫ লাখ রুপির বেশি দিয়েছে।’
এই রাজনীতিক আরো বলেন, রেহাম ইমরানের মানসম্মান ধুয়ে দিতে তাকেও (সালমান) অর্থ দিতে চেয়েছিলেন। তিনি বলেন, ‘আমার কাছে সব প্রমাণ আছে। তিনি আমাকে যত ই-মেইল করেছেন, এর সবই আছে।’
রেহামের মতে, ইমরান খান একজন ভণ্ড ও মিথ্যাবাদী। তিনি রোজা রাখেন না, নামাজ পড়েন না।
পিটিআইয়ের আরেক সমর্থক অভিনেতা হামজা আলী আব্বাসি তার টুইটারে বলেছেন, রেহাম খানের বইয়ের পাণ্ডুলিপি পড়ে তিনি খুবই দুঃখ পেয়েছেন। তার মনে হয়েছে, বইটির সারমর্ম হলো পৃথিবীর সবচেয়ে জঘন্য মানুষ হলো ইমরান। রেহাম হচ্ছে খুবই ধার্মিক নারী এবং শাহবাজ শরিফ (সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ভাই) চমৎকার মানুষ।’
এসব ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় রেহাম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গত বছর আব্বাসির পাঠানো এক ই-মেইল প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, কোনো এজেন্সি বা হ্যাকাররা পিটিআইকে তার বিরুদ্ধে তথ্য দিয়েছে। তিনি টুইটারে লিখেছেন, ভেবে অবাক হচ্ছেন বই প্রকাশেই আগেই একজন অভিনেতার পক্ষে কেমন করে পাণ্ডুলিপি পড়া সম্ভব? ‘শুধু জালিয়াতি বা চুরির মাধ্যমেই তা সম্ভব।’
পিটিআইয়ের মুখপাত্র ফুয়াদ চৌধুরী বলেন, পিটিআইকে বদনাম করতে বইটি প্রকাশের জন্য এমন সময় (নির্বাচনের আগে) বেছে নেওয়া হয়েছে। তিনি পদচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের মেয়ে মরিয়মের সঙ্গে রেহামের দেখা করার সমালোচনা করেন। তার মতে, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহসান ইকবাল এই বৈঠকের আয়োজন করেন। চৌধুরী দাবি করেন, এই অভিযোগ প্রমাণের পক্ষে তার দলের কাছে সব তথ্য-প্রমাণ রয়েছে।
সূত্র : প্রথম আলো

আরও পড়ুন