হরিণা চিংড়ির পোনা ধরে চলে সংসার

আপডেট: 02:57:25 07/11/2017



img

এস এম আলাউদ্দিন সোহাগ, পাইকগাছা (খুলনা) : হরিণা চিংড়ির পোনা ধরে এবং তা বিক্রি করে চলে খুলনার পাইকগাছার বহু গরিব পরিবারের সংসার।
সারা বছর রোদ-বৃষ্টি ও শীত-গরম উপেক্ষা করে জোয়ারের সময় নদী বা খালের গভীর পানিতে ছিটকে জাল ঠেলে ধরা হয় হরিণা চিংড়ি পোনা; যা স্থানীয় ছোট ছোট চিংড়ি ঘের মালিকদের কাছে ৪-৫ শত টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। এ থেকে যা আয় হয় তা দিয়ে চলে তাদের সংসার। ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া, পোশাক পরিচ্ছদসহ অন্যান্য খরচ।
উপজেলার গদাইপুর, রাড়ুলী, কপিলমুণি, লস্কর, সোলাদানা ও গইড়খালী ইউনিয়নে এদের সংখ্যা বেশি দেখা গেছে। সকাল-দুপুর ও সন্ধ্যা ও প্রভাতে বহু মানুষ ছিটকে জাল নিয়ে নদী বা খালে হরিণা চিংড়ি পোনা ধরতে নেমে পড়েন। তবে তাদেরকে অপেক্ষা করতে হয় জোয়ারের সময় পর্যন্ত। দীর্ঘ সময় ধরে জাল ঠেলে নদী বা খালের কিনারে এসে বাছাই করা হয় হরিণা পোনা। সব মিলিয়ে নদীতে ভাটা লাগার আগ পর্যন্ত জাল ঠেলে যে পরিমাণ পোনা পাওয়া যায় তা কষ্টের তুলনায় সামান্য বলে জানায় তারা।
গদাইপুর ইউনিয়নের চেঁচুয়া গ্রামের হাকিম দপ্তরী (৬০) হাকিম দপ্তরী জানান, তিনি ১৬ বছর ধরে হরিণা পোনা ধরে সংসার চালাচ্ছেন।
গড়ইখালীর জিন্নাত গাজী (৬৫) জানান, ২০ বছর তিনি পোনা ধরে পাঁচজনের সংসার চালাচ্ছেন। জাল ঠেলে সর্বোচ্চ ২০০ টাকার চিংড়ি পোনা ধরতে পারেন। আবার দিন খারাপ হলে আয় নেমে আসে ৫০-৬০ টাকায়।