চারশ’ কোটি টাকার সবজি উৎপাদনে খুলনার চাষি

আপডেট: 01:47:44 17/10/2018



img

জিয়াউস সাদাত, খুলনা : চিংড়ি খামারের পাশে টমেটো, মুলা আর লাল শাক। অন্য ভূমিতে পালংশাক, পুঁইশাক, বেগুন, শিম, ওলকপি, বাঁধাকপি আর ফুলকপি শোভা পাচ্ছে।
জেলায় শীতের সবজি আবাদ করা জমি ছয় হাজার ৪৮৫ হেক্টর। এই জমিতে ৪০০ কোটি টাকার সবজি আবাদে নেমেছেন নয় উপজেলার তিন লাখ ২৭ হাজার কৃষক। এ তথ্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের।
এবার কাক্সিক্ষত বৃষ্টি হয়নি। আশ্বিন মাস থেকে ভূমি সতেজ রয়েছে। কাদামাটি না থাকায় শীতের সবজি উৎপাদনে উপযোগী ছিল চিংড়ি খামারের আইল। কৃষক আশ্বিন মাস থেকেই লাল শাক ও মুলা উৎপাদন শুরু করে। কার্তিকের প্রথম দিক থেকেই বেগুনসহ অন্যান্য সবজির উৎপাদন শুরু হয়েছে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসেব মতে, গতকাল মঙ্গলবার থেকে শীতকালীন আবাদের সূচনা। এবার কৃষক আগেভাগেই সবজি উৎপাদন শুরু করেছে। জেলায় ছয় হাজার ৪৮৫ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের সবজি রোপণ করা হয়েছে। তার মধ্যে ৭২৫ হেক্টর বেগুণ ও ৭৬৬ হেক্টর টমেটো।
গত বছর জেলায় ১৫ হাজার মেট্রিক টন বেগুন, ১৭ হাজার টন টমেটো এবং নয় হাজার ২৫০ টন আলু উৎপাদন হয়।
ফুলতলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রিনা খাতুন জানান, চিংড়ি খামারের আইলে টমেটো আর লাল শাক উৎপাদন শুরু হয়েছে আগেভাগেই। অন্য জমিতে বেগুন, শিম ও নানা ধরনের কপির চারা রোপণ করা হয়েছে। উপজেলার দামোদর ও জামিরা ইউনিয়নে সবচেয়ে বেশি জমিতে সবজির আবাদ হয়েছে।
ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নজরুল ইসলামের দেওয়া তথ্যমতে, খর্ণিয়া ও মাগুরখালী থেকে উৎপাদিত শিম বাজারে আসতে শুরু করেছে। উপজেলায় ২৫০ হেক্টর জমিতে শিম, ২৩০ হেক্টরে লাল শাক, ৩৪০ হেক্টরে টমেটো, ৩৩০ হেক্টরে বেগুন, ২৮০ হেক্টরে ওলকপি, ২৮৫ হেক্টরে ফুলকপি এবং ১৬০ হেক্টর জমিতে বাঁধাকপির আবাদ হয়েছে। সাত ইউনিয়নের সব গ্রামের কৃষকরা শীতের সবজি পরিচর্যায় ব্যস্ত।
ডুমুরিয়া সদরের কৃষক মাস্টার আব্দুল মজিদ বলেন, ‘৬৩ শতক জমিতে লাল শাক, মুলা, টমেটো, ওলকপি, শিম ও পুঁইশাকের আবাদ করেছি। কার্তিক মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে টমেটো ও লাল শাক বিক্রি শুরু হবে। গত বছর শীত ও গ্রীষ্মকালীন সবজি এক লাখ ৬০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছিলাম।’
তার প্রতিবেশী ফরিদুল ইসলাম মোল্লা, আসাদুল মোল্লা, নজরুল ইসলাম মোল্লা, হায়দার শেখ ও মাহবুবুর রহমান গাজী বাড়তি মুনাফার আশায় আগেভাগেই শীতের সবজি উৎপাদন করেছেন। খুলনার নয় উপজেলায় কৃষি কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্যমতে শীত মৌসুমে প্রায় ৪০০ কোটি টাকার সবজি উৎপাদন হবে।

আরও পড়ুন