যশোর জেনারেল হাসপাতালে বোমা নিক্ষেপ, আতঙ্ক

আপডেট: 01:16:30 19/11/2017



img
img
img

স্টাফ রিপোর্টার : শনিবার সন্ধ্যায় যশোর জেনারেল হাসপাতালের প্রশাসনিক ভবনের দ্বিতীয় তলায় বোমা মেরেছে সন্ত্রাসীরা। এসময় সেখানে উপস্থিত লোকজন আতঙ্কিত হয়ে দিগ্বিদিক ছোটাছুটি শুরু করেন।
পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বিস্ফোরিত বোমার আলামত উদ্ধার করেছে।
এর আগে যশোর শহরের চাঁচড়া রায়পাড়ায় দুই গ্রুপের বোমাবাজি এবং ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। সেইসময় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে আল আমিন ও সজল নামে দুই তরুণ আহত হন। তাদের যশোর জেনারেল হাসপাতালের ভর্তি করার পর সন্ধ্যায় প্রতিপক্ষরা হাসপাতালে এসে ফের বোমা হামলার ঘটনা ঘটায়।
পুলিশ চাঁচড়া রায়পাড়ার ঘটনাস্থল থেকে একটি তাজা বোমা, বিস্ফোরিত বোমার অংশবিশেষ এবং একটি ছুরি উদ্ধার করে।
এলাকাবাসী, চাঁচড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই সৈয়দ বায়েজিদ এবং কোতয়ালী থানার এসআই সাহাবুল আলম জানান, চাঁচড়া রায়পাড়া এলাকায় মাদক বিক্রি ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কাজী সজল ও আল আমিন গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ  চলে আসছে। এই বিরোধকে কেন্দ্র করে আজ শনিবার বিকেলে রায়পাড়ায় আল আমিনের ওপর হামলা চালায় প্রতিপক্ষ। এসময় সন্ত্রাসীরা পর পর দুটি বোমা নিক্ষেপ করে। এরমধ্যে একটি বোমা বিস্ফোরিত হয়। এর আগে আল-আমিন গ্রুপের হামলায় আহত হন সজল।
আহত আল-আমিন বলেন, 'কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে কাজী সজল ও তার গ্রুপের লোকজন আমাকে ছুরি মারে।'
আহত সজল তার ওপর হামলার ব্যাপারে প্রতিপক্ষ আল-আমিন গ্রুপকে দায়ী করেছেন।
খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আল-আমিনকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। আর স্থানীয়রা সজলকে হাসপাতালে ভর্তি করেন।
 এর কিছু সময় পর একদল সন্ত্রাসী যশোর জেনারেল হাসপাতালের প্রশাসনিক ভবনের দ্বিতীয়তলায় দেওয়ালে একটি বোমা ছুড়ে মারে। বোমার শব্দে রোগীর স্বজনরা আতঙ্কিত হয়ে দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করতে থাকে। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে হাসপাতালজুড়ে।
হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার এম আব্দুর রশিদ সুবর্ণভূমিকে বলেন, 'আহত আল-আমিন ও সজল আশংকামুক্ত।'
চাঁচড়া ফাঁড়ির ইনচার্জ সৈয়দ বায়েজিদ হোসেন সুবর্ণভূমিকে বলেন, 'মাদক বিক্রি নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া এবং বোমাবাজির ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি ছুরি, একটি তাজা বোমা ও বিস্ফোরিত বোমার অংশবিশেষ উদ্ধার করা হয়েছে।'
কোতয়ালী থানার এসআই মিজানুর রহমান সুবর্ণভূমিকে বলেন, 'খবর পেয়ে হাসপাতালের প্রশাসনিক ভবনের দ্বিতীয় তলা থেকে বিস্ফোরিত বোমার অংশবিশেষ উদ্ধার করেছি। যারা বোমাবাজি করেছে, পুলিশ তাদের আটকের চেষ্টা করছে।'
যশোর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. কামরুল ইসলাম বেনু সুবর্ণভূমিকে বলেন, 'হাসপাতালের প্রশাসনিক ভবনের দ্বিতীয়তলায় বোমাবাজির ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। আমি এখন ঢাকায় আছি। এর চেয়ে কিছুই বলতে পারছি না।'

আরও পড়ুন