গণেশ প্রতিমা বিসর্জন দিতে গিয়ে ১৮ জনের মৃত্যু

আপডেট: 03:40:36 25/09/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যে ১১ দিন ধরে চলা গণেশপূজা উৎসব শেষে প্রতিমা বিসর্জন দিতে গিয়ে ১৮ জন ডুবে মারা গেছে।
রোববার ‘অনন্ত চতুর্দশী’ বা চূড়ান্ত দিনের শেষে বিসর্জন শুরু হলেও ব্যাপক এ বিসর্জন উৎসব ৩০ ঘণ্টা পর সোমবার বিকেলে শেষ হয় বলে জানিয়েছে।
১৩ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া মহারাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় এ উৎসবের শেষে পুরো রাজ্যজুড়ে লাখ লাখ গণেশ মূর্তি বিসর্জন দেওয়া হয়েছে। গণেশভক্তরা নেচেগেয়ে তাদের দেবতার মূর্তি আরব সাগর, সাগরের খাঁড়ি, বিভিন্ন নদী, হ্রদ, পুকুর, কুঁয়া, কৃত্রিম ট্যাংক ও অন্যান্য জলাশয়ে বিসর্জন দেয়।
কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সোমবার বিকেল থেকে পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় মুম্বাইয়ের ভান্ডপে একজন, পুনেতে চারজন, রতনগিরিতে তিনজন, জালনায় তিনজন, ভানদারায় দুইজন, সাতারায় দুইজন এবং নানদেদ, বুলধানা ও আহমেদনগরে একজন করে ডুবে মারা যায়।
সোমবার সকালে গিরগাউম চৌপট্টি এলাকায় আরব সাগরে গণেশ বিসর্জনের সময় অতিরিক্ত লোকবোঝাই একটি নৌকা উল্টে যায়। এখান থেকে তিন বালিকাসহ অন্তত পাঁচজনকে উদ্ধার করা হয়।
মুম্বাইয়ের উত্তর-পশ্চিমাংশে কান্দিভালি এলাকায় বিসর্জন দেওয়ার সময় গণেশের বিশাল একটি মূর্তি ভক্তদের উপর উল্টে পড়ে অন্তত ১৭ জন আহত হন।
মহারাষ্ট্রজুড়ে এই বিশাল গণেশ বিসর্জন উৎসবে ছোট থেকে বড় বিভিন্ন আকারের প্রায় ১১ লাখ গণেশের মূর্তি বিসর্জন দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।
বর্ণিল এই বিসর্জন উৎসব দেখতে ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ, প্রতিবেশী দেশগুলো ও বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চল থেকে আসা পর্যটকরা গিরগাউম চৌপট্টি এলাকায় হাজির হয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন মহারাষ্ট্র ট্যুরিজম ডেভলপমেন্ট করপোরেশনের এক মুখপাত্র। এসব পর্যটকের দেখার সুবিধার জন্য বিশেষ আয়োজন করা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন তিনি।
বোম্বে হাই কোর্ট এবারের উৎসবে ডিজে ও লাউডস্পিকারে গান বাজানো নিষিদ্ধ করায় মুম্বাই ও অন্যান্য বড় শহরে শব্দদূষণহীন বিসর্জন উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে খবরে প্রকাশ।
সূত্র : এনডিটিভি, বিডিনিউজ

আরও পড়ুন