দেশে ফিরলেন শিশুসহ ১৯ বাংলাদেশি নারী

আপডেট: 09:00:31 25/04/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : দুই থেকে চার বছর সাজাভোগ শেষে ভারত থেকে দেশে ফিরলেন শিশুসহ ১৯ বাংলাদেশী নারী ।
বুধবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ তাদের বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্থান্তর করে। এ সময় বিজিবি, বিএসএফ ও দুই দেশের ইমিগ্রেশন পুলিশের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন ।
ফেরত আসারা হলেন, রানি মণ্ডল (২৩), রুপা খাতুন (১৫), হালিমা খাতুন (২০) ও তার শিশু সন্তান আব্দুল্লাহ (০২), নাজমা খাতুন (২৪), মারিয়া (১৭), হালিমা বেগম (১৬), ইতি খাতুন (১৫), রিক্তা (১৭), আশা আক্তার (২২), নাসিমা খাতুন (১৭), আয়শা আক্তার (২৭), স্বপ্না (২৪), সুলতানা (২২), শান্তা (১৬), ডলি আক্তার (২৮), রিনা (৩২) ও রিমা আক্তার (২০)। এদের বাড়ি খুলনা, সাতক্ষীরা, নড়াইল, ময়মনসিংহ ও যশোর জেলার বিভিন্ন এলাকায়।
বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( ওসি ) তরিকুল ইসলাম এক শিশুসহ ১৮ জন বাংলাদেশি নারী ট্রাভেল পারমিটের মাধ্যমে দেশে ফেরত আসার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ।
বেসরকারি সংস্থা রাইটস যশোরের প্রোগ্রাম অফিসার সরোয়ার হোসেন জানান, দেশে ফেরত আসা নারীরা সীমান্তের অবৈধ পথে বিনা পাসপোর্টে ভারতে যান। অবৈধভাবে ভারতের মুম্বাই শহরে বিভিন্ন বাসা বাড়িতে কাজ করাকালে বিভিন্ন দেশের পুলিশের হাতে আটক হন তারা। পরে তাদের পুলিশ জেলহাজতে পাঠায়। অবৈধ অনুপ্রবেশের অপরাধে তাদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয় সে দেশের আদালত। সেখান থেকে রেসকিউ ফাউন্ডেশন নামের একটি এনজিও তাদের মুক্ত করে নিজেদের হেফাজতে রাখে। পরে ভারত সরকারের দেওয়া বিশেষ ‘ট্রাভেল পারমিটের’ মাধ্যেমে তাদেরকে দেশে ফেরত আনা হয়। ফেরত আসাদের জাস্টিস অ্যান্ড কেয়ার দুইজন, মহিলা আইনজীবী সমিতি শিশুসহ ১২ জনকে এবং রাইটস যশোর চারজনকে গ্রহণ করেছে। প্রাথমিকভাবে তাদের ঢাকা আহছানিয়া মিশনের শেল্টার হোমে রাখা হবে। পরে তাদের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে জানান জাস্টিস অ্যান্ড কেয়ারের কো-অর্ডিনেটর আব্দুল মুহিত।