যশোর পৌরসভা সচিবের এ কী কাণ্ড

আপডেট: 07:18:45 22/02/2018



img
img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোর পৌরসভার সচিব আব্দুল্লাহ আল মাসুম আজ সকালে শ্রাবণী রায় (৩০) নামে এক নারীকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছেন।
কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ক্ষিপ্ত মাসুম ওই নারীর ফ্ল্যাটে গিয়ে এই কাণ্ড ঘটান বলে অভিযোগ। তবে ওই নারীর সঙ্গে মাসুমের অনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে বলে কাউন্সিলরসহ স্থানীয়রা বলছেন। তারা এও জানাচ্ছেন, শ্রাবণী ছাড়াও আরো বেশ কয়েক নারীর সঙ্গে সচিব মাসুম একাধারে অনৈতিক সম্পর্ক বজায় রেখে চলেছেন। তারা সচিবকে ‘লম্পট’ আখ্যা দিচ্ছেন।
সচিবের আক্রমণের শিকার শ্রাবণী পশ্চিম বারান্দী খালধার রোড এলাকার ডাক্তার আনোয়ারুল হকের বাড়ির দ্বিতীয় তলার একটি ফ্লাটে ভাড়া থাকেন। তার স্বামীর নাম দীপঙ্কর রায়। সচিবের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কের কারণে তার সংসার ভেঙেছে বলে স্থানীয়রা জানান। তবে অভিযুক্ত সচিবের বক্তব্য জানার চেষ্টা করা হলেও তিনি সাড়া দেননি।
আহত শ্রাবণীকে জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছেন প্রতিবেশীরা। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, তার অবস্থা গুরুতর।
শ্রাবণী রায়ের দাবি, পৌরসভার সচিব আব্দুল্লাহ আল মাসুম তার ধর্মভাই। কিন্তু তা সত্তে¡ও সচিব তাকে কুপ্রস্তাব দিতেন। এই প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তিনি আক্রান্ত হন।
শ্রাবণী সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘কুপ্রস্তাব দেওয়ার ঘটনা আমি তার (মাসুম) স্ত্রীকে জানিয়ে দেওয়ার হুমকি দিই। এতে সে ক্ষিপ্ত হয়ে বাসায় ঢুকে আমার ওপর চড়াও হয়। ছুরি দিয়ে আঘাত করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে। এমনকি বালিশ চাপা দিয়ে খুন করারও চেষ্টা করে। চিৎকার শুনে পাশের ফ্লাটের বাসিন্দারা ছুটে এসে আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে। এই সুযোগে মাসুম পালিয়ে যায়।’
তবে ঘটনার ব্যাপারে এখনো আইনগত ব্যবস্থা নেননি বলে জানান শ্রাবণী।
যশোর জেনারেল হাসপাতালের মহিলা সার্জারি ওয়ার্ডের ইন্টার্ন ডাক্তার আশরাফিন নাসরিন দৃষ্টি সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘শ্রাবণীর ডান পায়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয়েছে। তিনি মাথায় প্রচণ্ড আঘাত পেয়েছেন। সিটিস্ক্যান করতে বলা হয়েছে। তার অবস্থা গুরুতর।’
ঘটনার বিষয়ে জানার জন্য পৌরসভার বেশ কয়েকজন কাউন্সিলরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়।
নাম প্রকাশ না করে এক কাউন্সিলর বলেন, ‘ঘটনা সত্যি। ওই মহিলার সাথে সচিবের দীর্ঘদিনের শারীরিক সম্পর্ক। সাবেক মেয়র মারুফুল ইসলামের আমলে পৌরসভায় এই নিয়ে একবার ঝামেলা হয়েছিল।’
‘শ্রাবণী নামে ওই মহিলাকে মাসুম বিয়ে করার আশ্বাস দিয়েছিল। সেই কারণে স্বামী দীপঙ্করের সঙ্গে তার ছাড়াছাড়িও হয়ে যায়,’ বলছিলেন ওই জনপ্রতিনিধি।
সংশ্লিষ্ট এলাকার ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাশেদ আব্বাস রাজ সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘ঘটনা সত্যি। খালধার রোড এলাকাবাসী আমাকে ফোনে এঘটনা জানিয়েছেন।’
যোগাযোগ করা হলে যশোর পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র (প্যানেল মেয়র) মুস্তাফিজুর রহমান মুস্তা সুবর্ণভূমিকে এই বিষয়ে কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।
তবে পৌরসভার সূত্রগুলো জানিয়েছে, সচিব মাসুম লম্পট প্রকৃতির। শহরের কাজীপাড়া, বেনাপোল সীমান্ত, কেশবপুরসহ বিভিন্ন স্থানে চার-পাঁচ নারীর সঙ্গে তার অনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে।’
জানতে চাইলে কোতয়ালী থানার ইনসপেক্টর (তদন্ত) আবুল বাশার সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘এরকম ঘটনা আমার জানা নেই। এখনই পুলিশ পাঠিয়ে খবর নিয়ে দেখছি।’
তবে অভিযুক্ত সচিব আব্দুল্লাহ আল মাসুমকে কয়েক দফা ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। সুবর্ণভূমির পরিচয়ে এসএমএস পাঠানো হলেও তিনি সাড়া দেননি।

আরও পড়ুন