ভেঙে যাওয়ার মুখে রুশ-মার্কিন অস্ত্রচুক্তি

আপডেট: 03:00:01 22/10/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আর রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের হুমকি আর পাল্টা হুমকিতে উত্তপ্ত বিশ্ব রাজনীতি। পরিস্থিতি এতোটাই জটিল যে ভেঙে যাওয়ার মুখে রুশ-মার্কিন পরমাণু অস্ত্র চুক্তি।
শনিবারই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ৩০ বছরের পুরনো এই চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন মস্কোকে। আর রোববার তার পাল্টা দিলেন পুতিন। সাফ জানালেন, চুক্তি থেকে বেরিয়ে গেলে তা আমেরিকার জন্য খুবই ভয়ঙ্কর হবে।
লাগামছাড়া অস্ত্র প্রতিযোগিতায় রাশ টানতে ১৯৮৭ সালে পারস্পরিক বোঝাপড়ার মাধ্যমে এই চুক্তিটি করেছিলেন তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান এবং সোভিয়েত প্রেসিডেন্ট মিখাইল গর্বাচেভ। ভূমি থেকে আকাশ যে কোনো মাঝারি পাল্লার (৫০০ কিমি থেকে ৫০০০ কিমি) ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করা হবে না, এই মর্মেই চুক্তিবদ্ধ হয়েছিল মস্কো ও ওয়াশিংটন। সারা বিশ্বের অস্ত্র প্রতিযোগিতায় লাগাম টানতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল এই চুক্তি। গত পাঁচ দশকে নিজেদের পরমাণু অস্ত্রের সম্ভার কমাতে একের পর এক অন্যান্য চুক্তিতেও অংশ নেয় আমেরিকা ও রাশিয়া।
শনিবারই মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানান, ‘‘রাশিয়া নিজের মতো অস্ত্র বানিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু আমরাই শুধু চুক্তি মেনে চলেছি। আমি জানি না বারাক ওবামা কেনো এই চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসার কথা ভাবেননি।’’
২০১৪ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও চুক্তিভঙ্গের অভিযোগ এনেছিলেন রাশিয়ার বিরুদ্ধে। জানিয়েছিলেন, ‘‘চুক্তি ভেঙে একের পর এক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করে চলেছে রাশিয়া।’’
কিন্তু ইউরোপীয় রাষ্ট্রনেতাদের চাপেই চুক্তি ভেঙে বেরিয়ে আসার কথা ভাবেননি ওবামা। কারণ, এই চুক্তি ভাঙলে ফের বিপজ্জনক অস্ত্র প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হবে সারা বিশ্ব।
আমেরিকার অভিযোগ, চুক্তি ভঙ্গ করে মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র নোভাটর উৎক্ষেপণ করেছে রাশিয়া। এর ফলে খুব কম সময়ে ন্যাটো গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলোর ওপর পরমাণু হামলা চালানোর ক্ষমতার অধিকারী হয়ে গেছে মস্কো। আর তাতেই গোঁসা আমেরিকার।
আগামী সপ্তাহেই মস্কোতে রাশিয়ার সঙ্গে বৈঠকে বসবেন মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বুল্টন। মনে করা হচ্ছে, সেখানেই বিষয়টি নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে আমেরিকা।
আমেরিকার কড়া মনোভাব সামনে আসার পর পাল্টা হুমকির রাস্তায় গেল রাশিয়াও। রোববারই রুশ উপ বিদেশমন্ত্রী সার্গেই রাবকভ জানালেন, ‘‘আমেরিকার এই পদক্ষেপ খুবই বিপজ্জনক। আমি জানি না, সমস্ত আন্তর্জাতিক নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে কীভাবে আমেরিকা এই চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাবে। আসলে রাশিয়াকে ব্ল্যাকমেল করে আমাদের কাছ থেকে কিছু ছাড় পেতে চাইছে ওয়াশিংটন।’’
যদিও আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের অনেকেই মনে করছেন, আমেরিকা ও রাশিয়ার অস্ত্রচুক্তি থেকে আসল সুবিধে পাচ্ছে চীন। এই সুযোগে নিজেদের অস্ত্রের সম্ভার বাড়িয়ে চলেছে তারা। তা বুঝতে পেরেই এখন চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার গোঁ ধরেছে আমেরিকা। আর তাই রাশিয়ার বিরুদ্ধে আনা হচ্ছে চুক্তি লঙ্ঘনের অভিযোগ।
সূত্র : আনন্দবাজার

আরও পড়ুন