কবির মুরাদ, অমিতসহ বিএনপির ৫৬ নেতাকর্মী আটক

আপডেট: 09:06:03 20/04/2018



img

মৌসুমী নিলু, নড়াইল : নড়াইলের একটি গ্রাম থেকে বিএনপির ৫৬ নেতা কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।
এদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কবির মুরাদ, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক (খুলনা বিভাগ) অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, জেলা সহসভাপতি সাজ্জাদ হোসেন সুজা, জেলা সভাপতি বিশ্বাস জাহাঙ্গির আলমের বড় ভাই মিজানুর রহমান বিশ্বাস প্রমুখ রয়েছেন।
কিছু সময় আগে কালিয়া উপজেলার নড়াগাতি থানার খাশিয়াল গ্রাম থেকে তাদের আটক করা হয়।
স্থানীয়রা জানান, জেলা বিএনপির কর্মিসভা করার প্রস্তুতিকালে হঠাৎ পুলিশ এসে তাদের ঘিরে ফেলে। খবর পেয়ে কেন্দ্রীয় ও জেলা বিএনপির বেশ কয়েক নেতা অবশ্য আগেই স্থান ত্যাগ করেন। পরে সেখানে থাকা ৫৬ নেতাকর্মীকে ধরে নিয়ে যায় পুলিশ।
নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিমউদ্দিন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘আটকদের নামে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। যারা পালিয়েছে তাদেরকে খুঁজে বের করবে পুলিশ।’
এদিকে, দলীয় একটি সূত্র জানায়, কালিয়ার ওই গ্রামে একটি সামাজিক অনুষ্ঠান ছিল। সেই অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া এবং একই সঙ্গে কর্মিসভা করার উদ্দেশে গুরুত্বপূর্ণ কয়েক নেতা কালিয়া গিয়েছিলেন। কিন্তু নড়াইল বিএনপির বিবদমান এক পক্ষ বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করে। নড়াইল বিএনপির জেলা কমিটি নিয়ে দ্বন্দ্বের ফলই হলো আজকের ঘটনা। তবে দলীয় কোনো নেতা এই তথ্য স্বীকার করেননি।
যোগাযোগ করা হলে বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও যশোর জেলার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু বলেন, ‘নেতাকর্মীদের পুলিশ আটক করেছে বলে শুনেছি। এর বেশি কিছু জানি না।’
অ্যাডভোকেট সাবু বিনা কারণে নেতাকর্মীদের আটকের তীব্র নিন্দা জানান। একই সঙ্গে তিনি আটক সবার মুক্তি দাবি করেন।
আটকদের মধ্যে কবির মুরাদ বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ছাড়াও জিয়া পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এবং মাগুরা জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি। আর অনিন্দ্য ইসলাম অমিত যশোর থেকে প্রকাশিত দৈনিক লোকসমাজের নির্বাহী সম্পাদক। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার আগের দিন রাতে অমিত ঢাকার বাসা থেকে গ্রেফতার হন। সম্প্রতি তিনি ছাড়া পান।
এদিকে, আমাদের লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি রূপক মুখার্জী জানান, যে বাড়িটিতে বিএনপি নেতাকর্মীরা জড়ো হয়েছিলেন, সেটি নড়াইল জেলা বিএনপির সভাপতি বিশ্বাস জাহাঙ্গীর আলমের গ্রামের বাড়ি থেকে তাদের আটক করা হয়।
আটক নেতাদের মধ্যে আরো রয়েছেন, মাজেদুর রহমান, কালিয়া উপজেলা সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদুজ্জামান মিলুও। তবে পুলিশ আসার খবর পেয়ে বাড়িমালিক ও জেলা বিএনপির সভাপতি বিশ্বাস জাহাঙ্গীর আলম সটকে পড়েন।

রাতে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বিএনপি নেতাকর্মীদের নড়াইল শহরে আনেনি পুলিশ। নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিমউদ্দিন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, আটক নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা হচ্ছে।

আরও পড়ুন