আমরণ অনশনে কুয়েট শিক্ষার্থীরা

আপডেট: 07:40:09 31/03/2018



img
img

খুলনা অফিস : ময়মনসিংহের ভালুকায় বিস্ফোরণে নিহত খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) চার শিক্ষার্থী পরিবারকে এক কোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণের দাবিতে আমরণ অনশনে বসেছেন শিক্ষার্থীরা।
শনিবার বিকেল সাড়ে তিনটা থেকে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীদের ডাকে প্রশাসনিক ভবনের সামনে এ অনশন শুরু হয়। অনশন চলাকালে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন স্লোগান দেন।
অনশনরত শিক্ষার্থীরা জানান, চার সহপাঠীকে হারিয়ে তারা শোকে বাকরুদ্ধ। এসব শিক্ষার্থীর চিকিৎসার জন্য প্রায় ছয় লাখ টাকা খরচ করা হয়েছে। যার মধ্যে মাত্র ৫০ হাজার টাকা কুয়েট প্রশাসন দিয়েছে। বাকিটা কুয়েট শিক্ষার্থীসহ দেশ-বিদেশে অবস্থানরত সাবেক শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সহযোগিতা নেওয়া হয়েছে। তারপরও তাদের বাঁচানো যায়নি।
তাদের দাবি, ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক পরিবারকে কুয়েট প্রশাসন এক কোটি টাকা করে মোট চার কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিক। এই ক্ষতিপূরণের টাকা রোববার দুপুর একটার মধ্যে পরিবারগুলোর মধ্যে বণ্টন করতে হবে। এই টাকা পরিবারের হাতে না যাওয়া পর্যন্ত অনশন চলবে। দাবি না মানা হলে রোববার পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।
কুয়েটের টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৩তম ব্যাচের সাবেক জিএস ইয়াসির আরাফাত বলেন, ‘আমাদের দাবির প্রেক্ষিতে সিন্ডিকেটের ৬০তম (জরুরি) সভা শনিবার দুপুরে ডাকা হয়। সভায় সিন্ডিকেট মেম্বাররা সিদ্ধান্ত নেন, ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক পরিবারকে পাঁচ লাখ টাকা করে অনুদান এবং প্রত্যেক পরিবারের সদস্যদের তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতার ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরির ব্যবস্থা করা হবে। ক্ষতিগ্রস্তদের সবার পরিবারের সদস্যরা খেটে খাওয়া মানুষ এবং দুইজনের বাবা নেই। একজনের বাবা প্যারালাইজড। তাহলে বিশ্ববিদ্যালয় কাদের চাকরি দেবে? আমরা এই সিদ্ধান্ত মানি না।’
অনশনের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীরের সঙ্গে কথা বলার জন্য তার ব্যবহৃত নাম্বারে ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।
এদিকে কুয়েটের চার শিক্ষার্থী আকস্মিক মৃত্যুর ঘটনায় শনিবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন দিনের শোক পালন করা হচ্ছে।