দুই কিশোরের লাশ উদ্ধার, স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

আপডেট: 09:40:46 20/09/2018



img

খুলনা অফিস : খুলনায় পৃথক দুই স্থান থেকে মুছা শিকদার (১৫) ও শামীম শেখ (১৫) নামের দুই কিশোরের লাশ উদ্ধার হয়েছে।
বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে রূপসা উপজেলার আলাইপুর গ্রামের আঠারোবাকী নদী থেকে মুছার এবং দুপুর ১২টার দিকে চাঁদপুর গ্রামের শিয়ালী নদীর পাশে হোগলাবন থেকে ভ্যানচালক শামীম শেখের লাশ উদ্ধার হয়।
এছাড়া ফারজানা খাতুন (১৫) নামে অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে।
নিহত মুছা শিকদার রূপসা উপজেলার আলাইপুর গ্রামের মোস্তাকিন শিকদারের ছেলে ও শামীম শেখ তেরখাদা উপজেলার আড়কান্দি গ্রামের মধ্যপাড়ার ভ্যানচালক ঝড়– শেখের ছেলে। আর ফারজানা রূপসা উপজেলার জয়পুর গ্রামের ইউনুস শিকদারের মেয়ে।
এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, রূপসা উপজেলার আলাইপুর গ্রামের মুছা শিকদার উপজেলা সদরের একটি মাদরাসায় পড়ালেখা করত। এক বছর আগে তাকে তার বাবা মোস্তাকিন শিকদার আলাইপুর গ্রামের দক্ষিণপাড়ায় বাড়ির পাশে একটি মুদি দোকান করে দেন। তারপর থেকে সে ওই দোকান চালাতো। রাতে সে দোকানেই ঘুমাতো। বুধবার রাত ১১টার দিকে বাড়ি থেকে রাতের ভাত খেয়ে সে দোকানে ঘুমাতে যায়। এ সময় ৫-৬ ব্যক্তি তার দোকানে যায়। বৃহস্পতিবার সকালে তার বাবা দোকানে গিয়ে দেখতে পান, দোকান বাইরে থেকে তালা মারা। তিনি বাড়ি থেকে আরেকটি চাবি এনে দোকান খুলে দেখেন সেখানে মুছা নেই। তখন ঘটনাটি মুছার বাবা মোস্তাকিন শিকদার তার ভাইকে জানান। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে এলাকাবাসী দেখতে পান, বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে আঠারোবাকী নদীতে তার লাশ ভাসছে। খবর পেয়ে রূপসা থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।
এদিকে, বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে রূপসা উপজেলার চাঁদপুর গ্রামের শিয়ালী নদীর পাশে হোগলাবন থেকে পুলিশ ভ্যানচালক শামীম শেখের লাশ উদ্ধার করেছেন।
পুলিশ জানায়, গত ৫ সেপ্টেম্বর সকালে শামীম শেখ বাড়ি থেকে বের হয়। তারপর থেকে সে নিখোঁজ ছিল। বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় এক কৃষক শিয়ালী নদীর হোগলাবনে গরুর জন্য ঘাস কাটতে যান। এ সময় দুর্গন্ধ পেয়ে এগিয়ে গিয়ে তিনি নদীর পাড়ে বনের মধ্যে একজনের লাশ মাটিতে পোতা ও পা উপরের দিকে দেখতে পায়। ওই কৃষকের চিৎকারে এলাকাবাসী এসে লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে জানান। দুপুর ১২টার দিকে রূপসা থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। পরে নিহত শামীমের জামা-কাপড় দেখে তার বাবা ঝড়ু শেখ ও মা সুরভি বেগম তাকে শনাক্ত করেন।
নিহত শামীম শিকদার রূপসার চাঁদপুর গ্রামের পাশে তেরখাদা উপজেলার আড়কান্দি গ্রামের মধ্যপাড়ার ভ্যানচালক ঝড়ু শেখের ছেলে।
অপরদিকে, বৃহস্পতিবার সকালে রূপসা উপজেলার জয়পুর গ্রামে ফারজানা খাতুন (১২) নামে অষ্টম শ্রেণিপড়ুয়া এক কিশোরী আত্মহত্যা করে। নিহত ফারজানা স্থানীয় নৈহাটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী।
এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, জয়পুর গ্রামের ইউনুস শিকদারের সঙ্গে তার স্ত্রী সফুরা বেগমের তালাক হয়ে যাওয়ার পর ফারজানা তার মায়ের সঙ্গে বসবাস করত। ফারজানার মা সফুরা বেগম রূপসা ঘাট-সংলগ্ন একটি ডকইয়ার্ডে শ্রমিকের কাজ করেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে বাড়ির কাজকর্ম নিয়ে সফুরা তার মেয়ে ফারজানার সঙ্গে রাগারাগি করেন। পরে তিনি কাজের উদ্দেশ্যে ডকইয়ার্ডে চলে গেলে ফারজানা ঘরের আড়ার সঙ্গে নিজের ওড়না বেঁধে গলায় ফাঁস দেয়। প্রতিবেশীরা টের পেয়ে তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
রূপসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, রূপসা থানার দুটি পৃথক স্থান থেকে দুইজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া একজন স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে।
ওসি বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, মুছাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। তবে কী কারণে কারা তাকে হত্যা করেছে তা এখনো জানা যায়নি। হত্যাকাণ্ডের কারণ ও জড়িতদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করা হচ্ছে।
অপরদিকে নিহত শামীম শেখের লাশ পচে হাড়-গোড় শরীর থেকে বেরিয়ে গেছে। হত্যাকাণ্ডসহ তিন ঘটনারই তদন্ত করা হচ্ছে। এসব ঘটনায় রূপসা থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

আরও পড়ুন