ছয় বনদস্যু বাহিনী আত্মসমর্পণ করছে আজ

আপডেট: 02:12:35 23/05/2018



img

খুলনা অফিস : সুন্দরবনের কুখ্যাত জলদস্যু, বনদস্যু বাহিনীর প্রধানসহ ছয়টি বাহিনীর ৫৪ জন সদস্য র‌্যাব-৬ খুলনা সদর দপ্তরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করবে বুধবার। এ সময় তারা বিপুল অস্ত্র ও গোলাবারুদও সমর্পণ করবে।
র‌্যাব-৬ খুলনার পরিচালক অতিরিক্ত ডিআইজি খোন্দকার রফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
র‌্যাব-৬ সূত্র জানায়, আত্মসমর্পণ করতে রাজি হওয়া দস্যু বাহিনীগুলো হলো, সুন্দরবন খুলনা অঞ্চলের ভয়ঙ্কর দাদা ভাই ওরফে রাজন বাহিনী, আমীর আলী বাহিনী, হান্নান বাহিনী এবং বরিশালের মুন্না বাহিনী, ছোট শামছু বাহিনী ও সূর্য বাহিনী। ছয় বাহিনীতে ৫০ থেকে ৫৪ জন সদস্য রয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে র‌্যাব সূত্র জানিয়েছে। তাদের কাছে দেশি-বিদেশি অর্ধশতাধিক আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে।
বুধবার সকাল সাড়ে দশটায় নগরীর লবণচরায় র‌্যাব-৬ খুলনার কার্যালয়ে আত্মসমর্পণের এ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।
অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণচন্দ্র চন্দ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি টিপু মুনশি, মন্নুজান সুফিয়ান এমপি, মিজানুর রহমান এমপি, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন, র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদসহ নৌবাহিনী, কোস্টগার্ড ও স্থানীয় প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন।
অনুষ্ঠানে এর আগে আত্মসমর্পণকারী বনদস্যুদের ৫৮ জনের প্রত্যেককে পুনর্বাসনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে এক লাখ টাকার চেক প্রদান করা হবে।
খুলনা র‌্যাব-৬ এর অধিনায়ক খোন্দকার রফিকুল ইসলাম জানান, খুলনার তিনটি দস্যু বাহিনীর সদস্যরা স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে বুধবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হাতে অস্ত্র জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করবে। সুন্দরবনকে নিরাপদ করতে সরকারের নির্দেশ পালন করছে র‌্যাব।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, খুলনা অঞ্চলের তিন দস্যু বাহিনী সুন্দরবনের শ্যামনগর, আড়পাঙ্গাসিয়া, মংলা, আন্ধার মানিক, হারবারিয়া, কলাগাছি এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে জেলে অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায় করে আসছিল। বনজীবীরা তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছিল। তাদেরকে মাসোয়ারা দিয়ে জেলে-মৌয়ালদের বনে ঢুকতে হতো। তবে সম্প্রতি র‌্যাবের বেশ কয়েকটি সফল অভিযানে পর দস্যুদের দৌরাত্ম কমতে থাকে। এমন অবস্থায় সরকারের সাধারণ ক্ষমার আওতায় এসব দস্যুরা আত্মসমর্পণের পথ খুঁজতে শুরু করে।  যার ধারাবাহিকতায় এর আগে ২১৭ জন জলদস্যু আত্মসমর্পণ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছে।

আরও পড়ুন