'মনিরুল হত্যা নিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার'

আপডেট: 03:41:59 16/05/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোর জেলা তরুণলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল শেখ হত্যাকারীদের আড়াল করতে একটি মহল ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের ষড়যন্ত্র করছে বলে অভিযোগ করেছে যুবলীগের তিনটি ইউনিট।
বুধবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোর কনফারেন্স রুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তারা এই অভিযোগ করেন।
যুবলীগ নেতারা বলেন, 'মনিরুল আমাদের দুঃসময়ের কর্মী। তার হত্যাকাণ্ডে সংগঠন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যে মুহূর্তে আমরা তার খুনিদের আটকে সোচ্চার, ঠিক তখন দলের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা একটি পক্ষ সংগঠনের সাহসী যোদ্ধা, জামায়াত-বিএনপি দুঃশাসনের বিরুদ্ধে লড়াকু সৈনিক জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মঈনুদ্দিন মিঠু, শহর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মেহবুব রহমান ম্যানসেল, সদর যুবলীগের সদস্য সাইদুর রহমান রিপনসহ ১১ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে মামলা দায়েরের চক্রান্ত করছে।'
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যের পাশাপাশি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন জেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মুনির হোসেন টগর, সহ-সভাপতি সৈয়দ মেহেদি হাসান, দপ্তর সম্পাদক হাফিজুর রহমান, সদস্য জাহিদুর রহমান লাবু, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম সম্পাদক লুৎফুল কবির বিজু, সদর যুবলীগের আহ্বায়ক অশোক বোস, শহর যুবলীগের আহ্বায়ক মাহমুদুল হাসান মিলু প্রমুখ।
তারা বলেন, মনিরুল সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের কারণে খুন হয়েছেন। ইজিবাইক সিন্ডিকেটের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বসহ স্থানীয়ভাবে আধিপত্য বিস্তার মূলত এই দ্বন্দ্বের কারণ। কিন্তু যশোরে সন্ত্রাস, চোরাচালান, মাদক, অস্ত্র ব্যবসায়ের যে সিন্ডিকেট রয়েছে, তারাই এই হত্যাকাণ্ডকে পুঁজি করে ফায়দা লোটার চেষ্টা করছে।
যুবলীগ নেতারা যশোরে এই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে, তার দরকারি ব্যবস্থা নেওয়া এবং মনিরুল হতাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের আটক ও শাস্তির দাবি করেন।
গত ১৩ মে রাত ১২টার দিকে যশোর শহরের পালবাড়ি ভাস্কর্য মোড়ে দুবৃর্ত্তদের ছোড়া বোমা ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে খুন হন মনিরুল শেখ। গুরুতর জখম হন সন্তোষ ঘোষ নামে অপর এক যুবক।

আরও পড়ুন