আমিরুলের ব্লাক কাউয়ের দাম ২০ লাখ টাকা!

আপডেট: 10:18:29 09/06/2021



img

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে বিশাল আকারের একটি গরু প্রস্তুত করেছেন কুষ্টিয়া সদরের ঝাউদিয়া ইউনিয়নের হাতিয়া গ্রামের আমিরুল মেম্বর। ভালোবেসে গরুটির নাম রেখেছেন ব্লাক কাউ।
দুই বছর আগে গরুটি কেনেন আমিরুল। শুধু গমের ছাল ও বিচালি খাইয়ে গরুটিকে মোটাতাজা করেন তিনি।
উদ্দেশ্য, কোরবানির ঈদে বিক্রি করে একবারে হাতে টাকা পাওয়া। কিন্তু করোনার কারণে গত কোরবানিতে সঠিক দাম না পাওয়ায় বিক্রি করতে পারেননি গরুটি। চলমান সময়েও করোনার প্রভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে গরুর সবরকম খাদ্যের দাম। এমন অবস্থায় গরুটি বাজারে নিতে পারবেন কি না, বাজারে নিলেও ক্রেতা মিলবে কি না, ক্রেতা মিললেও দাম পাওয়া যাবে কি না-এসব নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন আমিরুল মেম্বর। তবে, সামনের কোরবানিতে যেভাবেই হোক গরুটি বিক্রি করতে চান তিনি।
আমিরুল মেম্বর বলেন, গত দুইবছর ধরে আমি ও আমার পরিবারের সবাই গরুটি সন্তানের মতো করে লালন পালন করেছি। গরুটির খাবার বাবদ প্রতিদিন খরচ হয় ৮শ’ টাকা।
তিনি বলেন, গতবছর ৮ লাখ টাকা দাম হয়েছিল। বর্তমানে ব্লাককাউ আরো বড় হয়েছে। এতে প্রায় ৩২ মণ মাংস হবে। গরুটি ২০ লাখ টাকায় বিক্রি করতে চাই।
জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, মাঠের ঘাস ও স্বাভাবিক খাবার খাইয়ে সম্পুর্ণ প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে কুষ্টিয়ার খামারিরা গরু লালন পালন করেন। সে কারণেই  ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় কুষ্টিয়ার গরুর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রকোপ এই অঞ্চলে এখনো বেড়েই চলেছে। তাই খামারিদের গরু অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রির পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। চাষিরা এবার সঠিক দাম পাবেন বলেও  আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

আরও পড়ুন