আমিরের বরখাস্তাদেশ প্রত্যাহারের প্রতিবাদ ৮০ আইনজীবীর

আপডেট: 11:15:08 06/07/2020



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরে নানা অভিযোগে অভিযুক্ত আইনজীবী আমির হোসেনের বরখাস্তাদেশ প্রত্যাহারের প্রতিবাদ ও এই সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে জেলা আইনজীবী সমিতিতে লিখিত আবেদন করেছেন ৮০ আইনজীবী।
সোমবার যশোর জেলা আইনজীবী সমিতি কার্যালয়ে এই আবেদন দাখিল করা হয় । আবেদনে সিদ্ধান্ত বাতিল করে বিষয়টি সমিতির সাধারণ সভায় উপস্থাপনের দাবি জানিয়েছেন তারা।
আবেদনে আইনজীবীরা উল্লেখ করেন, আমিরের বিরুদ্ধে হত্যা, চাঁদাবাজি, নারী নির্যাতন, অর্থ আত্মসাৎ, আদালতের নথি জালিয়াতিসহ অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। তার বিরুদ্ধে চারটি মামলা বিচারাধীন, জেল খেটেছেন একাধিকবার। এরআগে তিনবার যশোর জেলা আইনজীবী সমিতি তাকে বরখান্ত করেন। অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে তার বিরুদ্ধে কৈফয়তও তলবের নজির রয়েছে। তার বিরুদ্ধে যশোরের বিভিন্ন এলাকায় মিছিল ও মানববন্ধনও হয়েছে। একাধিকবার আমিরের শাস্তির দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন হয়েছে। শতাধিক আইনজীবী তার বিরুদ্ধে লিখিতভাবে সমিতিতে অভিযোগও দেন। তারপরেও আমিরের পার পেয়ে যাওয়ার বিষয়টা নিয়ে কৌতূহলের জন্ম নিয়েছে।
‘নির্বাহী কমিটির সভার সিদ্ধান্ত যথাযথ হয়নি’ নয় দাবি করে বিষয়টি সমিতির সাধারণ সভায় উত্থাপনের জোর দাবি জানান ৮০ আইনজীবী।
তারা আরো উল্লেখ করেন, আমিরের কর্মকাণ্ডে শুধু সমিতিরই নয় পুরো আইনজীবী সমাজের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। এ দায়ভার প্রত্যেক আইনজীবীর বহন করতে হচ্ছে।
এ আবেদনে সমিতির সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম, সাবেক পিপি আবুল হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী ফরিদুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম সিদ্দিকী, সৈয়দ রুহুল কুদ্দুস কচি, জি এম আবু মিজানুর রহমান মিন্টু, এসএম বদরুজ্জামান পলাশ, খন্দকার দেলোয়ার হোসেন, আফজাল হোসেন, জিএম আবু মুসা প্রমুখ সিনিয়র আইনজীবী স্বাক্ষর করেন।
করোনা মহামারিকালে গত ১ জুলাই অনুষ্ঠিত হয় জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটির জরুরি সভা। সভায় বর্তমান সময়ের আলোচিত কিছু বিষয় নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হয়। সভার এজেন্ডা ছিল নানা অভিযোগে অভিযুক্ত হয়ে সমিতি থেকে বরখান্ত হওয়া তিন আইনজীবীর সাজা প্রসঙ্গে। সভায় অভিযুক্ত হয়ে সাজা খাটার পর দুইজনের বহিস্কার আদেশ প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত হয়। তার মধ্যে রয়েছে যশোরের সমালোচিত আমির হোসেন ও সৈয়দ কবীর হোসেন জনি।
এছাড়া সভায় আইনজীবী রুহিন বালুজের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ প্রমাণিত হলে তিনি দায় স্বীকার করে টাকা ফেরত দেওয়ার স্বার্থে অভিযোগটি নিস্পত্তি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে, এর বাইরে বরখাস্ত আইনজীবী মিজানুর রহমান বিপ্লবের আদেশ বহাল রাখা হয়।
সভায় আইনজীবী আমিরের বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত গ্রহণের খবর প্রকাশ পাওয়ার পরই সাধারণ আইনজীবীরা ক্ষুব্ধ হয়ে সমিতিতে লিখিত আবেদন জমা দেন।
এ বিষয়ে যশোর জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এম ইদ্রিস আলী জানান, আবেদনের বিষয়টি তিনি জানেন। কিন্তু সাধারণ সম্পাদক এম এ গফুর বারে আসছেন না। ফলে এখনই কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন