উদ্যোক্তারাই আইসিটি বিপ্লব ঘটাবে : স্বপন

আপডেট: 08:19:32 09/11/2019



img
img
img

স্টাফ রিপোর্টার : স্থানীয় সরকার, পল্লী ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য বলেছেন, দেশের নতুন উদ্যোক্তারাই আইসিটিতে বিপ্লব ঘটাবে। চাকরি খোঁজার চেয়ে চাকরি দেওয়ার প্রত্যয় নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।
তিনি দেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে এসব উদ্যোগী পরিশ্রমী উদ্যোক্তাদের ভয় না পেয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার আহŸান জানান। বলেন, তাহলেই বাংলাদেশ পৌঁছে যাবে উন্নয়নের শীর্ষে।
শনিবার বিকেলে যশোর শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক ইনভেস্টরস অ্যাসোসিয়েশনের নবনির্বাচিত কমিটির অভিষেক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক ইনভেস্টরস অ্যাসোসিয়েশন এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
এতে সভাপতিত্ব করেন অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আহসান কবীর।
পার্কের ক্যাফেটেরিয়া মিলনায়তনে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী স্বপন আরো বলেন, যশোরের এমপি বা প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের বিনিয়োগকারীদের সুবিধা-অসুবিধা দেখার দায়িত্ব তার। এ কারণে তিনি এ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত উদ্যোক্তাদের সমস্যা সমাধানে কাজ করবেন বলে আশ্বাস দেন।
এ আয়োজনে বিশেষ অতিথি ছিলেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর মো. আনোয়ার হোসেন।
তিনি বলেন, দেশে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি করতে হলে অবশ্যই প্রযুক্তিনির্ভর হতে হবে। এই জন্যে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি করা নয়, চাকরি দেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া করছে।
তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যে মানবসম্পদ তৈরি হয়, তার অধিকাংশ চলে যায় দেশের বাইরে। এ কারণে দেশের চাহিদা অনুয়ায়ী লোকবল পাওয়া যায় না।
অনুষ্ঠানে আরো বক্তৃতা করেন শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক ইনভেস্টরস অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি মুনসুর আলী, সাধারণ সম্পাদক মহিদুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য আনিকা হাসান।
সভা সঞ্চালন করেন যুগ্ম-সম্পাদক প্রকৌশলী মোহাম্মদ শাহজালাল।
পরে একই ভবনের মিটিং রুমে উদ্যোক্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য ও ভিসি ড. মো. আনোয়ার হোসেন।
এই সভায় উদ্যোক্তারা শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের নানা সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন। তারা বলেন, বাংলাদেশের প্রথম ও বৃহত্তম সফটওয়্যার পার্ক এটি। এই পার্ক সফল হলে দেশের প্রযুক্তি খাত অনেকদূর এগিয়ে যাবে; ব্যর্থ হলে গোটা প্রযুক্তি খাতের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। এখানকার বিদ্যুৎ বিল, স্পেস ভাড়া কমানো, সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে ক্লায়েন্ট সৃষ্টিতে সরকারিভাবে নানান প্রচার-প্রচারণা ও প্রণোদনা দেওয়ার আহ্বানও জানান তারা।
প্রতিমন্ত্রী স্বপন আশ্বস্ত করেন, যশোরের সন্তান হিসেবে তিনি স্থানীয় বিনিয়োগকারীদের সুবিধা-অসুবিধা দেখবেন।
ভিসি ড. আনোয়ার জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে ইন্ডাস্ট্রির সম্পর্ক গড়তে তিনি উদ্যোগী ভূমিকা পালন করবেন।
সন্ধ্যায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য কিছু সময় সঙ্গীত উপভোগ করেন।
পরে তিনি কয়েকটি কোম্পানির কার্যালয় ঘুরে দেখেন।