এবার দুদকের সাবেক ডিডির বিরুদ্ধে মামলা

আপডেট: 02:58:20 13/10/2019



img

স্টাফ রিপোর্টার : দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সাবেক উপ-পরিচালক (ডিডি) আহসান আলীর বিরুদ্ধে বেনাপোল পোর্ট থানায় মামলা করেছে কাস্টম কর্তৃপক্ষ।
বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকালে বেনাপোল কাস্টম হাউসের পক্ষে মামলাটি করেন সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা জি এম আশরাফুল ইসলাম। মামলা নম্বর-৩৮।
বেনাপোল কাস্টম অফিসার্স ক্লাবের পক্ষ থেকে বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা জিএম আশরাফুল ইসলাম এক লিখিত বক্তব্যে বলেন, দুদকের সাবেক ডিডি ও হবু মহাপরিচালক (ডিজি) পরিচয়দাতা আহসান আলীর অর্থ বিনিয়োগকৃত প্রতিষ্ঠান রিতু ইন্টারন্যাশনালের ৩১টি চালানে দুই কোটি দুই লাখ ৩৪ হাজার ৭০৮ টাকার শুল্ক ফাঁকির অন্যায় আবদার রক্ষা করতে না পারায় তিনি কাস্টম হাউস, বেনাপোলের কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরীর বিরুদ্ধে একটি বেনামি চিঠি লিখে সশরীরে দুদকসহ শতাধিক দপ্তর ও মিডিয়ায় বিতরণ করেন। এর আগে তিনি মোবাইল নম্বর-০১৭৭০০২৯৪১০১ ‬থেকে কল করে কমিশনারসহ এ দপ্তরের অন্যান্য কর্মকর্তাদের ভয়ভীতি, এসএমএস সর্বশেষ ২০১৮ সালের ১৯ নভেম্বর সশরীরে এসে কমিশনারকে নানাভাবে চাপ সৃষ্টি করেন। নিরাপত্তাজনিত কারণে কমিশনারের কক্ষে তার উপস্থিতিকাল মোবাইলে ভিডিও করে রাখা হয়। ভিডিও ক্লিপ, অডিও ক্লিপ ও হুমকির এসএমএস মামলার সঙ্গে প্রমাণ হিসেবে দাখিল করা হয়। ‬‬
জিএম আশরাফুল ইসলাম জানান, সম্প্রতি প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা মূল্যের ৬৭ মণ (২.৫ মে. টন) ভায়াগ্রা বেনাপোল কাস্টম কমিশনার না ছাড়ায় ক্ষতিগ্রস্ত একটি মহল ও ‘চোরাকারবারিদের গডফাদার’ আহসান আলীর নেতৃত্বে চোরাকারবারি ও সাংবাদিক নামধারী একটি সংঘবদ্ধ চক্র কমিশনার ও বেনাপোল কাস্টম হাউসের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত মিথ্যাচার, অপপ্রচার ও প্রতিশোধমূলক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত আছে। কেবল হয়রানি, শক্রতামূলক প্রতিহিংসা চরিতার্থের জন্যে আহসান আলী দুদকের মতো জাতীয় প্রতিষ্ঠানের নাম, পদবি ও প্রশাসনকে ব্যবহার করে নিজের উদ্দেশ্য হাসিল করতে চেয়েছেন। কোনো প্রকার প্রামাণ্য তথ্য উপাত্ত ছাড়া কমিশনারের বিরুদ্ধে বেনামি চিঠি দুদকসহ শতাধিক দপ্তর ও মিডিয়ায় বিতরণ করে বেনাপোল কাস্টম হাউস ও উচ্চ পদস্থ একজন কর্মকর্তার সম্মানহানি হয়েছে।
আহসান আলী সরকারের লাখ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার উদ্দেশ্যে কাগজপত্র জমা করা, কমিশনারের দপ্তরে সশরীরে এসে অবৈধ তদবিরসহ চাপ সৃষ্টি করা (ভিডিও সংযুক্ত), বেনামি অভিযোগ লিখে সশরীরে গিয়ে বিতরণ, সরকারের ৮০০ কোটি টাকা রাজস্ব ক্ষতি সাধন, আরো ক্ষতির প্রচেষ্টায় ধারাবাহিক লিপ্ত থাকা, দুদকের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে শুল্ক ফাঁকির জন্য অবৈধ তদবির ও চাপ প্রয়োগ, কমিশনারকে পরিকল্পিতভাবে ধারাবাহিক হয়রানি, কর্মকর্তাদের দুদকের ভীতি দেখিয়ে স্বার্থ হাসিল এবং সরকারি কাজে উপর্যুপরি বাধা সৃষ্টি করেছেন। তাকে অবিলম্বে গ্রেফতার করা না হলে ভায়াগ্রা চক্রের দ্বারা কর্মকর্তারা আক্রান্ত ও ক্ষতিগ্রস্ত হবার আশঙ্কা থাকায়, আটককারী কর্মকর্তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগায়, বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানির পরিমাণ ক্রমহ্রাসমান থাকায়, ভবিষ্যতে সমজাতীয় ভায়াগ্রা চালান আমদানির সম্ভাবনা থাকায়, বেনাপোলের অধিকতর রাজস্ব ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া কর্মকর্তারা স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড সম্পাদনে এখনো আতংকে ভুগছে বিধায় দুদকের সাবেক উপ-পরিচালক আহসান আলীর বিরুদ্ধে এজাহার গ্রহণ ও গ্রেফতার করে তার অন্যান্য সহযোগীদের গ্রেফতারের জন্য বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ ও যশোরের পুলিশ সুপারকে অনুরোধ করা হয়।
বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মামলাটি তদন্তে প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এর আগে গত ১৯ সেপ্টেম্বর বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টেস অ্যাসোসিয়েশন ৮০০ কোটি টাকা রাজস্ব ক্ষতি, কাস্টম হাউসকে স্থবির করা, আমদানি কমায় ও বাণিজ্য পরিবেশ বিনষ্টে কমিশনারকে হয়রানির অভিযোগে দুদকের ডিজি পরিচয়দাতা আহসান আলীকে গ্রেফতারের দাবি করেছিল।

আরও পড়ুন