এমএম কলেজছাত্রী বিয়ের চার মাসের মাথায় ‘খুন’

আপডেট: 09:01:46 27/05/2020



img

নড়াইল প্রতিনিধি : নড়াইলে বিয়ের চারমাসের মাথায় অনার্সপড়ুয়া স্ত্রীকে নির্যাতন শেষে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে।
বুধবার সদর উপজেলার কমলাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
মৃত গৃহবধূর নাম বিথী খানম (১৯)। তিনি নড়াইল পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের বাগবাড়ি-রঘুনাথপুর এলাকার হাবিবুর রহমানের মেয়ে। পড়তেন যশোর সরকারি মাইকেল মধুসূদন (এমএম) কলেজে।
গত চার মাস আগে সদর উপজেলার আউড়িয়া ইউনিয়নের কমলাপুর গ্রামের আব্দুল মোমেনের সঙ্গে তার বিয়ে হয়।
তার মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশ স্বামী মোমেনকে আটক করেছে।
বিথীর চাচা মো. খালিদ হাসান জানান, চার মাস আগে মেয়েটির বিয়ে হয় পারিবারিকভাবে। বিয়ের পর পারিবারিক কলহের জের ধরে বিথীকে তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির সদস্যরা নির্যাতন শুরু করে। নির্যাতন সইতে না পেরে বিথী দুই মাস আগে বাপের বাড়ি চলে এসেছিলেন। দুইদিন আগে এই নিয়ে শালিস-মীমাংসা হয়। স্বামী মোমেন ও তার বাড়ির লোকজন বিথীর ওপর আর নির্যাতন করবে না বলে মৌখিকভাবে অঙ্গীকার দেয়। এরপর বিথীকে স্বামীর বাড়িতে পাঠানো হয়।
তিনি বলেন, ‘বিথী স্বামীর বাড়িতে আত্মহত্যা করেছে বলে খবর পেয়ে বুধবার সকালে কমলাপুর গ্রামে যাই। সেখানে বিথীর লাশ দেখতে পাই। পরে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।’
নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইলিয়াস হোসেন জানান, বিথীর মৃত্যুর ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্বামী মোমেনকে আটক করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর জানা যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা।

আরও পড়ুন