করোনা মোকাবেলায় নড়াইলে প্রস্তুতি সামান্য

আপডেট: 02:17:21 14/03/2020



img

মৌসুমী নিলু, নড়াইল : নড়াইলে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় এখনো শক্তিশালী প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা তৈরি হয়নি। এছাড়া এটি শনাক্তে বিশেষ কোনো ব্যবস্থাও নেই। তবে ভাইরাস মোকাবেলায় সচেতনতামূলক প্রচারণা চালানো এবং সাধ্যমতো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, করোনাভাইরাস শনাক্তে কোনো কিটস এবং থার্মাল স্ক্যানার নেই নড়াইলে। করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জেলা-উপজেলা পর্যায়ে ন্যূনতম ৫০ শয্যা রেডি রাখার নির্দেশ দিলেও তা করা এখনো সম্ভব হয়নি; কাজ যতটুকু এগিয়েছে, তা সামান্য। এছাড়া জেলার কোনো সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে অত্যাধুনিক আইসিইউ সুবিধা নেই। বিদেশ থেকে আসা ব্যক্তিদের শনাক্ত করা এবং কোয়ারেন্টাইনের তেমন কোনো ব্যবস্থাও করা হয়নি।
নড়াইলের সিভিল সার্জন মো. আব্দুল মোমেন বলেন, মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী সদর হাসপাতালে দশটি, কালিয়া উপজেলা হাসপাতালে পাঁচটি এবং লোহাগড়া হাসপাতালে পাঁচটি শয্যার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া একটি মেডিকেল টিম, একটি র‌্যাপিড রেসপন্স টিম, তথ্য আদান-প্রদানের জন্য একটি কন্ট্রোল টিম গঠন করা হয়েছে।
করোনা পরীক্ষার জন্য থার্মাল স্ক্যানারের ‘তেমন প্রয়োজন নেই’ উল্লেখ করে বলেন, তিনি বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ে থার্মোমিটার দিয়ে পরীক্ষা করা যাবে।
সিভিল সার্জন আরো বলেন, করোনা মোকাবেলায় জেলা প্রশাসনের সঙ্গে যৌথভাবে সচেতনতামূলক প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে। কেউ বিদেশ থেকে এলে নিজেকে ১৪ দিন একা থাকার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। কারা বিদেশ থেকে আসছে এ তথ্য জানার ক্ষেত্রে কিছুটা দুর্বলতা রয়েছে বলে স্বীকার করেন তিনি। বলেন, এ ক্ষেত্রে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং আইনশৃংখলা বাহিনী ভূমিকা রাখতে পারবে। এছাড়া সদর হাসপাতালের হট লাইন (০১৭৩০-৩২৪৮০১) নম্বরে যোগাযোগ করা যেতে পারে।
করোনা রোগী শনাক্তের জন্য আইইডিসিআর-এর মাধ্যমে হট লাইনের মাধ্যমে স্যাম্পল কালেকশনের ব্যবস্থা রয়েছে বলে জানান জেলার এই শীর্ষ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন