কর্মী খুন, অচেতন কাউন্সিলর প্রার্থী

আপডেট: 12:04:22 17/02/2021



img
img

স্টাফ রিপোর্টার: যশোর শহরের ঘোপ বেলতলা বউবাজার এলাকায় পারভেজ (৩২) নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।
পৌর নির্বাচনে প্রচারণা চালাতে গিয়ে তিনি নিহত হন। হত্যাকাণ্ডে চারজন অংশ নেয় বলে জানিয়েছেন নিহতের স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা।
এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুইজনকে পুলিশ হেফাজতে নিয়েছে এবং জড়িতদের ধরতে অভিযান শুরু হয়েছে।
এদিকে, পারভেজের রক্তাক্ত শরীর দেখে অসুস্থ হয়ে পড়ায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলাম সোহাগকে।
নিহত পারভেজ যশোর সদরের বাহাদুরপুর গ্রামের হঠাৎপাড়ার তোতা মিয়ার ছেলে।  
নিহতের স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পারভেজ বউবাজার এলাকায় জন্মগ্রহণ করেছে। সম্প্রতি তারা ওই এলাকা ছেড়ে শহরতলীর বাহাদুরপুর এলাকায় চলে যান। যশোর পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলাম সোহাগের সাথে ছোটবেলা থেকে সম্পর্ক থাকায় পারভেজ তার প্রচারণায় অংশ নেন। আজ সন্ধ্যায় প্রচারণা শেষে বউবাজার এলাকায় একটি চায়ের দোকানে গিয়ে বসেন। এসময় সেখানে চারজনের সাথে তার বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে তারা তাকে কুপিয়ে জখম করে ফেলে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহতের খালা রওশন আরা জানান, সে সোহাগের ভোট চাইতে গিয়েছিল। আমার মানিকরে ওরা এভাবে মারতে পারলো।
তানভীর ইসলাম নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, পারভেজ সন্ধ্যার পর কাউন্সিলর প্রার্থী সোহাগের হয়ে প্রচারণা চালাচ্ছিল। প্রচারণা শেষে বউবাজারে তসলিমের বাড়ির সামনের চায়ের দোকানে আসে। এসময় সেখানে চারজনের সাথে তার কথাকাটাকাটি হয়। কী নিয়ে ঝগড়া শুরু হয় তা বলতে পারবো না। একপর্যায়ে ওরা পারভেজকে কুপিয়ে জখম করে। আমরা দৌঁড়ে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে পারভেজকে উদ্ধার করে হাসপাতালে আনলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
আরিফ হোসেন নামে অপর এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ওরা ছিল চারজন। নূর আলম আর নান্টু। অন্য দুইজনকে চিনি না। ওরা পারভেজকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে চলে যায়।
যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক এম আব্দুর রশিদ জানান, পারভেজ নামে এক যুবককে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়। প্রচুর রক্তক্ষরণের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে।
খবর পেয়ে হাসপাতালে যান যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সেখ সালাউদ্দিন শিকদার। তিনি বলেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নেয়া হয়েছে। জড়িতদের ধরতে অভিযান শুরু হয়েছে বলে জানান তিনি।
নির্বাচনী প্রচারণার কারণে হত্যা  কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।
এদিকে, পারভেজের উপর হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলাম সোহাগ। তিনি পারভেজের রক্তাক্ত শরীর দেখে অসুস্থ হয়ে পড়েন। স্বজনরা দ্রুত তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।
জরুরি বিভাগের চিকিৎসক এম আব্দুর রশিদ জানান, অচেতন অবস্থায় সোহাগ নামে একজনকে আনা হয়। তাকে ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। কী কারণে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন তা পরীক্ষা নিরীক্ষা করছেন ওয়ার্ডের চিকিৎসকরা।

আরও পড়ুন